সাবধান! এ কাজ কখনো করবেন না ফেসবুকে

বর্তমানে সর্বাধিক ব্যবহৃত সোসিয়াল গণমাধ্যম হলো ফেসবুক।
আমরা রীতিমতো এখানে সবকিছু শেয়ার করে ফেলি। কিন্তু কখনো কি ভেবে দেখেছেন এই বিষয়গুলো আপনার বিপদ ডেকে আনতে পারে।

অর্থাৎ আজকের পোস্টে আমি আপনাদেরকে দেখাবো যে কাজগুলো আপনার ফেসবুকের অবশ্যই করা উচিত নয়,আর আপনি যদি করেন তাহলে এগুলো আপনার বিপদ ডেকে আনতে পারে।

নিজের সম্পর্কে তথ্য দান

ফেসবুকে এরকম অপশন আছে আপনি চাইলে সেখানে আপনার পার্সোনাল ইনফরমেশন দিতে পারেন। যাতে করে যে কেউ আপনার আপনার সম্পর্কে পুরোপুরি ধারনা পেতে পারে।  

অর্থাৎ আপনি কোথায় থাকেন? কি করেন? কোন পজিশনে আছেন?কিংবা অন্য যেকোন কিছু যা আপনি চাইলে এ বিষয় গুলো ফেসবুকের সাথে যুক্ত করতে পারেন।

আমি আপনাকে একটা রিকুয়েষ্ট করবো আর সেটা হলো আপনি বিষয়গুলোকে কখনো একেবারে সঠিক ভাবে পূরণ করবেন না। কারণ এটা আপনার বিপদ ডেকে আনতে পারে! 

কারো সাথে ঝগড়া বিবাদ

বাস্তবিক জীবনের মত অনলাইনে ঝগড়া বিবাদ এরকম কাজ গুলো প্রায় চলে।

হোক সেটা ইনবক্সে কিংবা অন্যের কমেন্ট বক্স। কিন্তু এটা খুবই খারাপ অভ্যাস। কারন আপনি চাইলে কারো সাথে ঝগড়া বিবাদ করে তাকে বদলাতে পারবেন না।

তাছাড়া অনেক সময় দেখা যায় এগুলো আপনার জন্য অনেক বড় বিপদ ডেকে আনে। আর এটা ভার্চুয়াল জীবন থেকে শুরু করে এটা বাস্তবে রূপ নেয়!

এবং জীবনে চলার পথে বাধা সৃষ্টি করে। আর আপনি যদি এরকম কারো সাথে করে থাকেন তাহলে আপনি ফোনের মাধ্যমে কিংবা তার ইনবক্সে এ বিষয়গুলো মীমাংসা করে নিবেন।

এতে করে ফায়দা আপনারই হবে নয়তো বিপদ অনিবার্য!

নিজের সম্পর্কে মিথ্যা বলা

ভার্চুয়াল এ অনেক সময় দেখা যায় যে আমরা নিজেকে বড় করার জন্য প্রতিনিয়ত অন্যজনের কাছে নিজের সম্পর্কে অনেক বাড়িয়ে  কথা বলি।

এটা আসলে সমস্ত খারাপ কাজের একেবারে নিম্ন স্তরের কাজগুলোর মধ্যে একটি । কারণ সত্য কখনো চাপা থাকে না।

 যখন কেউ আপনার সম্বন্ধে সত্য বিষয়গুলো জানতে পারবে! তখনই আপনার মান-সম্মান হোক কিংবা অন্য কোন বিষয় প্রতি বিরূপ প্রভাব ফেলতে পারে।

 তাই চেষ্টা করবেন এই কাজটি এড়িয়ে চলা!

অন্যের আইডি হ্যাক করার হুমকি প্রদান

অনেক সময় দেখা যায় অনেকেই আইডি হ্যাক করার হুমকি দেয়। স্বভাবত যারা এ কাজটি করে মূলত তারা কোন ধরনের হ্যাকার না তারা মূলত ফাপরবাজ!

তারা হ্যাকারদের নাম দিয়ে লোক সমাজে বেরিয়ে বেড়ায়। আপনি যদি এরকম কাউকে হুমকি দেন কিংবা হুমকি দেওয়ার চেষ্টা করেন তাহলে ওই ব্যক্তিটি যদি তথ্যপ্রযুক্তি আইনে আপনার নামে মামলা করে।

তাহলে নিশ্চিত আপনাকে আইনের আওতায় আনা হবে। কারণ এটা সম্পূর্ণ পক্ষে অবৈধ কাজ তাই বাঁচতে হলে এর সমস্ত কাজ গুলো থেকে নিজেকে বিরত রাখুন।

এই সেই বিষয়ে গুলো যেগুলো থেকে আপনাকে অবশ্যই বিরত থাকতে হবে। নয়তো এই বিষয়গুলো ফেসবুকে আপনার চরম বিপদ ডেকে আনতে পারে!

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

18 − 10 =

close
Scroll to Top
Share via
Copy link