ফেসবুকে কিভাবে টাকা আয় করা যায়? ( অদেখা ৯ টি উপায়)

আমাদের মধ্যে যে বা যারা ফেসবুক ইউজার রয়েছেন, তাদের কাছে একটি কমন প্রশ্ন প্রায়শই ঘুরপাক খায়, আর সেটি হল, ফেসবুকে কিভাবে টাকা আয় করা যায় ?

ফেসবুকে কিভাবে টাকা আয় করা যায় এই রিলেটেড বিস্তারিত তথ্য আপনি যদি জেনে নিতে চান, তাহলে এই আর্টিকেলের মাধ্যমে জেনে নিতে পারবেন।

এছাড়াও এই আর্টিকেলের মাধ্যমে জেনে নিতে পারবেন ফেসবুকে আসলেই কি টাকা আয় করা যায় ? এবং যদি আয় করা যায় তাহলে  ফেসবুকে কিভাবে টাকা আয় করা যায় ? সেই সম্পর্কে বিস্তারিত।

ফেসবুক থেকে টাকা আয় করা কি সম্ভব?

আপনি যদি সঠিক পদক্ষেপ অনুসরণ করেন এবং সঠিক কার্যক্রম সম্পন্ন করতে পারেন, তাহলে সহজেই ফেসবুক থেকে টাকা আয় করতে পারবেন।

যার মানে হলো, ফেইসবুক থেকে টাকা আয় করা অবশ্যই সম্ভব এবং টাকা আয় করতে হলে আপনাকে এরকম কিছু ট্রিকস সম্পর্কে জেনে নিতে হবে, যেগুলো সম্পর্কে আপনি আগে জানেন নি।

যেহেতু এই আর্টিকেলে ফেসবুক থেকে আয় রিলেটেড বিস্তারিত আলোচনা করা হবে এবং কিভাবে আয় করতে পারবেন সেই সম্পর্কে আলোচনা করা হবে।

সেজন্য, চিন্তার কোন কারন নেই, রিলাক্স মুডে থেকে আর্টিকেল দেখে নিতে পারেন।

ফেসবুক থেকে আয় করার উপায় কি কি?

আর্টিকেল এর শুরুতেই বলা হয়েছে আপনি চাইলে বিভিন্ন উপায়ে কাজে লাগিয়ে ফেসবুক থেকে আয় করতে পারবেন এবং কি সেই সমস্ত হয় সেগুলো সম্পর্কে নিচে সংক্ষিপ্ত আলোচনা করা হলো।

  • ফেসবুক পেজ মনিটাইজেশন।
  • প্রোডাক্ট বিক্রি করা।
  • মার্কেটিং বৃদ্ধি করা এবং ফানেল তৈরি করা।
  • এফিলিয়েট প্রোডাক্ট বিক্রি করা।
  • স্পনসর্শিপ এবং এডভার্টাইজিং।
  • ভিডিও এবং এড ব্রেক থেকে।
  • পেইজের এডমিন থেকে টাকা আয়।
  • সোসিয়াল মিডিয়া এক্সপার্ট।
  • ফেসবুক পেজ বিক্রি করে ইত্যাদি।

উপরে যে সমস্ত উপায়ের কথা মেনশন করা হয়েছে, সে সমস্ত উপায় ছাড়াও আরও বিভিন্ন রকমের উপায় ফেসবুক থেকে টাকা আয় করতে পারবেন।

তাহলে আর দেরি না করে এখনি এই বিষয়গুলো সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা যাক এবং দেখে নেয়া যাক কিভাবে সমস্ত উপায়কে কাজে লাগিয়ে টাকা আয় করা সম্ভব।

ফেসবুক পেজ মনিটাইজেশন

আপনার যদি একটি ফেসবুক পেজ থেকে থাকে এবং এই পেজে, ফেসবুক মনিটাইজেশন এর যে কন্ডিশন আছে, সেই মনিটাইজেশন রুলস যদি মান্য করে, তাহলে আপনি চাইলে পেইজটি মনিটাইজ করতে পারেন।

আপনি যদি আপনার ফেসবুক পেজ মনিটাইজেশন করতে চান, তাহলে রিকোয়ারমেন্ট হিসেবে নিম্নলিখিত লিংকে ভিজিট করতে পারেন এবং আপনার ফেসবুক পেজ মনিটাইজেশন রিকোয়ারমেন্ট গুলো মেনে চলেছে কিনা, সেগুলো চাইলে দেখে নিতে পারেন।

উপরে উল্লেখিত লিংকে ভিজিট করার পরে তারা যেভাবে আপনাকে নির্দেশনা দিয়েছে, সেই নির্দেশনা মেনে চললে দেখে নিতে পারবেন, আপনার ফেসবুক পেজটি মনিটাইজেশন রিকোয়ারমেন্ট গুলো মেনে চলছে কিনা।

যদি আপনার ফেসবুক পেজ মনিটাইজেশন রিকোয়ারমেন্ট গুলো মেনে চলে এবং আপনার ফেসবুক পেজে যদি মনিটাইজেশন এনাবেল হয়ে যায়, তাহলে এই পেজ থেকে ভিডিও এড দেখিয়ে টাকা আয় করতে পারবেন।

প্রোডাক্ট বিক্রি করা

আপনার যদি নিজস্ব কোন প্রোডাক্ট থেকে থাকে, তাহলে আপনি চাইলে ফেসবুক পেজ তৈরি করার মাধ্যমে সেই প্রোডাক্ট বিক্রি করে এক্সট্রা টাকা ইনকাম করতে পারেন।

অর্থাৎ আপনার নিজস্ব কোন যদি প্রোডাক্ট থেকে থাকে এবং সেই প্রোডাক্টের মার্কেটিং করার প্রয়োজন হয় এবং বিভিন্ন রকমের কাস্টমার পাওয়ার ইচ্ছা পোষণ করেন, তাহলে আপনি চাইলে ফেসবুক ব্যবহার করতে পারেন।

এভাবে আপনি যদি প্রোডাক্ট বিক্রি করতে চান, তাহলে একটি ফ্রি বিজনেস পেজ কিংবা পার্সোনাল পেজ তৈরি করতে পারেন এবং সেই সমস্ত পেজে আপনার প্রোডাক্টের ইনফর্মেশন অনুযায়ী প্রোডাক্টগুলো সাবমিট করতে পারেন।

প্রোডাক্টের স্পেশালিটি এবং অন্যান্য বিষয়গুলো সম্পর্কে আপনি যদি বিস্তারিত বর্ণনা করেন, তাহলে যে কেউ আপনার পেইজ থেকে প্রোডাক্টগুলো ক্রয় করার ইচ্ছা পোষণ করবে এবং আপনি এখান থেকে ভালো রকমের পন্য বিক্রি করতে পারবেন।

মার্কেটিং বৃদ্ধি করা এবং ফানেল তৈরি করা

এছাড়াও আপনি যদি যে কোনো রকমের মার্কেটিং করতে চান, তাহলে ফেসবুক ব্যবহার করার মাধ্যমে মার্কেটিং করতে পারবেন।

এ কাজটি করার জন্য আপনি চাইলে ফেইসবুক গ্রুপ তৈরি করতে পারেন কিংবা ফেসবুক পেজ তৈরি করতে পারেন এবং এই দুই দুটি উপায়ের মধ্যে থেকে যে কোন একটি উপায় আপনি চাইলে মার্কেটিং এর কাজ সম্পন্ন করতে পারেন।

অর্থাৎ যেকোন রকমের মার্কেটিং এর কাজ সম্পন্ন করার ক্ষেত্রে আপনি চাইলে ফেসবুক ব্যবহার করতে পারেন।

এবং আপনার মার্কেটিং এর কাজ আরো বেশি সহজতর করতে পারেন।

অর্থাৎ সিপিএ মার্কেটিং, ডিজিটাল মার্কেটিং, এফিলিয়েট মার্কেটিং এর মত কোন রকমের মার্কেটিং এর কার্যক্রম সম্পন্ন করার জন্য ফেইসবুক আপনার অনন্য সহযোগী হতে চলেছে।

এফিলিয়েট প্রোডাক্ট বিক্রি করা

এছাড়াও আপনি যদি এফিলিয়েট মার্কেটিং করতে চান, তাহলে ফেসবুকের মাধ্যমে এফিলিয়েট মার্কেটিং আরো বেশি সহজভাবে করতে পারবেন।

যে কোনো রকমের এফিলিয়েট প্রোডাক্ট ফেসবুকের মাধ্যমে বিক্রি করতে হলে শুধুমাত্র আপনাকে সেই রিলেটেড একটি ফেসবুক পেজ কিংবা গ্রুপ তৈরি করতে হবে।

এবং তারপরে প্রোডাক্ট এর গুণাগুণ বর্ণনা করে প্রোডাক্ট রিলেটেড একটি পোস্ট করে দিতে হবে।

এতে কারে এই প্রোডাক্টটি যদি কারো পছন্দসই হয়, তাহলে সে এই প্রোডাক্টটি আপনার লিঙ্ক থেকে ক্রয় করবে এবং আপনার এফিলিয়েট মার্কেটিং আরো বেশি সহজতর করে তুলবে।

এছাড়াও, আপনার এফিলিয়েট মার্কেটিং ওয়েবসাইটের ব্র্যান্ড সিগন্যালের বৃদ্ধি করার ক্ষেত্রেও একটি ফেসবুক পেজ অনন্য ভূমিকা পালন করে।

সেজন্য, ফেসবুক ব্যবহার করার মাধ্যমে আপনার এফিলিয়েট মার্কেটিং করার কার্যক্রম আরো বেশি সহজ ভাবে সম্পন্ন করে নিতে চাইলে ফেসবুক পেইজ তৈরি করে নিন অথবা ফেসবুক গ্রুপ তৈরি করে নিন।

স্পনসর্শিপ এবং এডভার্টাইজিং

এছাড়াও আপনার ফেসবুক পেইজ যদি খুব বেশি পপুলার হয়ে থাকে এবং এতে যদি খুব বেশি পরিমাণে লাইক, ফলোয়ার বৃদ্ধি পেতে থাকে, তাহলে আপনি ফেসবুক পেজ থেকে স্পনসর্শিপ বা এডভার্টাইজিং করে টাকা আয় করতে পারেন।

যখনই, আপনার ফেসবুক পেজের লাইক, ফলোয়ার অধীকতর বৃদ্ধি পাবে এবং ফেসবুক পেজের রিচ বৃদ্ধি পেয়ে যাবে, তখন বিভিন্ন রকমের স্পনসর্শিপ অফার আপনার ফেসবুক পেজের মধ্যে আপনি পাবেন।

ফেসবুকে কিভাবে টাকা আয় করা যায়? ( অদেখা ৯ টি উপায়)

এবং সে সমস্ত স্পনসর্শিপ এর মাধ্যমে আপনি চাইলে ফেসবুক ব্যবহার করার মাধ্যমে টাকা আয় করতে পারবেন।

তবে নতুনদের ক্ষেত্রে এবং নতুন যেকোন ফেসবুক পেজ কিংবা গ্রুপের ক্ষেত্রে সমস্ত স্পনসর্শিপ এবং এডভার্টাইজিং পাওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম।

আপনার ফেসবুক পেজে লাইক যদি বৃদ্ধি করতে পারেন, এবং ফেইসবুক পেইজের পোস্ট রিচ যদি বৃদ্ধি করতে পারেন, তাহলে আপনার ফেসবুক পেজের মধ্যে স্পনসর্শিপ পাওয়ার সম্ভাবনা বৃদ্ধি পাবে।

ফেসবুক থেকে আয় করার যতগুলো উপায় রয়েছে, সেগুলোর মধ্যে থেকে স্পনসর্শিপ এডভার্টাইজিং এর মাধ্যমে টাকা আয় করার উপায়কে অপশনাল হিসেবে বিবেচনা করতে পারেন।

এবং কোন কারণে আপনি যদি স্পনসর্শিপ এডভার্টাইজিং এর কোন রকমের মেসেজ না পান, তাহলে হতাশ হওয়ার কোনো কারণ নেই।

কারণ, একটু আগেই বলেছি এই অপশনটিকে অপশনাল হিসেবে বিবেচনা করতে পারেন।

ভিডিও এবং এড ব্রেক থেকে

আপনার যদি ফেইসবুক প্রফাইল, পেজ কিংবা গ্রুপ অধিকতর বড় হয়ে থাকে তাহলে এই সমস্ত প্রোফাইল এবং গ্রুপের মধ্যে ভিডিও অ্যাডভার্টাইজমেন্ট করে টাকা আয় করতে পারবেন।

আপনি চাইলে ফেসবুক পেইজের এডভার্টাইজিং রয়েছে, শুধুমাত্র এডভার্টাইজিং রুলস মান্য করার মাধ্যমে ফেসবুক পেজ মনিটাইজেশন করে আপনি ভিডিও এড যুক্ত করতে পারেন।

অথবা আপনার পপুলার ফেসবুক প্রোফাইল এর যেকোন শর্ট ভিডিও এর মধ্যে এডভার্টাইজিং ভিডিও ব্যবহার করে টাকা আয় করতে পারবেন।

এক্ষেত্রে, আপনার ফেইসবুক প্রোফাইল কিংবা পেইজ এর মধ্যে পপুলারিটি থাকতে হবে। নচেৎ, আপনি এই উপায়ে টাকা আয় করতে পারবেন না।

পেইজের এডমিন থেকে টাকা আয়

এছাড়াও আপনি যদি কোনো একটি ফেসবুক পেজের এডমিন থেকে থাকেন, তাহলে সেই সমস্ত ফেসবুক পেজের এডমিন থাকার মাধ্যমে আপনি টাকা আয় করতে পারবেন।

এক্ষেত্রে আপনার প্রোফাইল যদি বড় থেকে থাকে, তাহলে বিভিন্ন রকমের অথর্শিপ দেয়ার মাধ্যমে আপনি টাকা আয় করতে পারবেন।

এছাড়াও, কারো আর্টিকেল আপনার ফেসবুক পেইজে পাবলিশ করার মাধ্যমে আপনি টাকা আয় করতে পারবেন।

সোসিয়াল মিডিয়া এক্সপার্ট

এছাড়াও আপনি যদি সোশ্যাল মিডিয়া এক্সপার্ট হতে পারেন, তাহলে এই সোশ্যাল মিডিয়া এক্সপার্ট হওয়া বদৌলতে আপনি প্রচুর পরিমাণে টাকা আয় করতে পারবেন।

কারণ, যে কেউ যদি সোশ্যাল মিডিয়ার বিভিন্ন রকমের সমস্যার মধ্যে পড়ে, তাহলে সে আপনার শরণাপন্ন হবে এবং আপনার সার্ভিসকে নেয়ার মাধ্যমে সে এই সমস্যা থেকে মুক্তি পাবে।

যেকোনো সোসিয়াল মিডিয়া রিলেটেড সমস্যা সমাধানের ক্ষেত্রে আপনি চাইলে ওই ব্যক্তির কাছ থেকে চার্জ আদায় করে নিতে পারবেন।

এতে করে, আপনার কাজের প্র্যাকটিস হবে এবং এক্সট্রা টাকা আয় করতে পারবেন।

তবে, এক্ষেত্রে আপনার কাজটি আরও বেশি সহজতর করার জন্য ফেসবুক পেজ কিংবা গ্রুপ ব্যবহার করতে পারেন।

যেখানে, আপনি আপনার সার্ভিসের কথা মেনশন করবেন এবং তারপরে এই সার্ভিসটি তাদেরকে প্রোভাইড করে টাকা আয় করবেন।

ফেসবুক পেজ বিক্রি করে

আপনার ফেসবুক পেইজ যদি পপুলার হয়ে থাকে, তাহলে আপনি চাইলে কোন এক সময় ফেসবুক পেজ বিক্রি করার মাধ্যমে টাকা আয়।

অর্থাৎ আপনার পরিত্যক্ত পেইজ বা অব্যবহৃত ফেসবুক পেইজ বিক্রি করার মাধ্যমে আপনি নির্দিষ্ট অঙ্কের টাকা আয় করতে পারবেন।

ফেসবুক থেকে টাকা আয় করার মুখ্য বিষয় কি?

উপরে উল্লেখিত যে সমস্ত উপায় রয়েছে, সে সমস্ত উপায় নিঃসন্দেহে আপনি চাইলে ফেসবুক থেকে টাকা আয় করতে পারবেন।

তবে, ফেসবুক পেজ থেকে টাকা আয় করার জন্য আপনাকে যে কাজটি প্রথমত করতে হবে সেটি হলঃ ! «ফেসবুক পেইজ বড় করতে হবে»”।

ফেসবুক পেজের ফ্যান ফলোয়ার্স যত বেশি বৃদ্ধি করবেন, ফেসবুক পেজ থেকে টাকা আয় করার সম্ভাবনা তত বেশি বৃদ্ধি পাবে।

এজন্য, ফেসবুক পেইজ গ্রুপ কিংবা যে কোনো রকমের এ সোর্স থেকে টাকা আয় করার জন্য আপনাকে প্রথমত আপনার অডিয়েন্স বৃদ্ধি করার দিকে নজর রাখতে হবে।

আপনার যেকোন প্রোফাইলের ফ্যান-ফলোয়ার্স যত বেশি বৃদ্ধি করবেন, প্রোফাইল থেকে টাকা আয় করার সম্ভাবনাও তত বেশি বৃদ্ধি পাবে।

ফেসবুক থেকে টাকা আয় করবেন কিভাবে?

আপনি যদি ফেসবুক থেকে টাকা আয় করতে চান, তাহলে আপনাকে যে কাজটি করতে হবে সেটি হলঃ প্রথমত ফেসবুকে একটি প্রোফাইল তৈরি করে নিতে হবে।

অর্থাৎ যে উপায়ে আপনি ফেসবুক থেকে টাকা আয় করতে চান, সেই নিশ্চয়ই নিস রিলেটেড একটি প্রোফাইল তৈরি করে নিতে হবে।

হতে পারে সেটি একটি ফেসবুক পেজ অথবা একটি ফেইসবুক গ্রপ।

এবং এই সমস্ত গ্রুপ কিংবা ফেসবুক পেজ তৈরি করার পরে আপনি চাইলে সে সমস্ত পেইজ এবং গ্রুপ বোস্ট করার মাধ্যমে মেম্বার বৃদ্ধি করতে পারেন।

যখনই মেম্বার বৃদ্ধি করে নেবেন, তখন এই মেম্বার কে কাজে লাগিয়ে আপনার স্বার্থ সিদ্ধি করে নিতে পারবেন।

তাহলে আর দেরি না করে এখনি উপরে উল্লেখিত বিষয়গুলো কে কাজে লাগিয়ে ফেসবুক থেকে আপনার জীবনের প্রথম আর্নিং করে নিন ।

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Scroll to Top
Share via
Copy link