গুগল এডসেন্স পাওয়ার উপায় | এডসেন্স থেকে টাকা আয়|

আপনি যদি একটি ওয়েবসাইট তৈরি করেন এবং এই ওয়েবসাইটে এর থেকে আয় করতে চান তাহলে এক্ষেত্রে সবচেয়ে ভালো এবং সর্বোত্তম প্ল্যাটফর্ম হিসেবে আপনি নিজে থেকে আপনার পছন্দের শীর্ষে রাখবেন সেটি হলো গুগল এডসেন্স।

আপনি চাইলে গুগল অ্যাডসেন্সের মাধ্যমে প্রতি মাসে লক্ষাধিক কিনা তার চেয়েও বেশি টাকা আয় করতে পারবেন শুধুমাত্র আপনার ওয়েব সাইটে এড দেখানোর মাধ্যমে।

তবে এক্ষেত্রে আপনাকে গুগল এডসেন্স পাওয়ার জন্য কিছু কাজ করতে হয়, যা করার ফলে গুগল এডসেন্স আপনার সাইটে অনুমোদন দেয়। 

কি সেই কাজ গুলো?  যেগুলো আপনাকে গুগল এডসেন্স পাওয়ার জন্য করতে হয়।

অর্থাৎ আপনি যদি আপনার ওয়েবসাইটে গুগল এডসেন্স পেতে চান তাহলে আপনাকে আপনার ওয়েবসাইটের দিকে যে বিষয়গুলোর প্রতি সবচেয়ে বেশি নজর আরোপ করতে হবে, সেই বিষয়গুলো নিয়ে এই পোস্টে আলোচনা করা হয়েছে। 

আপনার ওয়েবসাইটে গুগল এডসেন্স  পাওয়ার উপায় অনেকগুলো রয়েছে, যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য যে বিষয়গুলো আপনার ওয়েবসাইটে করার মাধ্যমে আপনি খুব সহজেই গুগল এডসেন্স পেয়ে যেতে পারেন,।

সেই বিষয়গুলোর মধ্যে অন্যতম যে গুলো রয়েছে সেগুলো নিয়ে আমি আজকে আলোচনা করবো।

গুগল এডসেন্স পাওয়ার উপায়ঃ 

আপনি যদি আপনার ওয়েবসাইটে গুগল এডসেন্স পেতে চান তাহলে আপনাকে নিম্নোক্ত বিষয়গুলোর প্রতি অবশ্যই নজর আরুপ করতে হবে।

▪ ওয়েবসাইটের ডিজাইন

▪ ইউনিক আর্টিকেল

▪ ভিজিটর আপনার সাথে সংযুক্ত হওয়ার ব্যবস্থা

▪ সোশ্যাল মিডিয়ায় আইকন

মোটকথা আপনি যদি গুগল অ্যাডসেন্সে অ্যাপ্রভাল পেতে চান তাহলে আপনাকে শুধুমাত্র আপনার ওয়েবসাইটে উপরে উল্লেখিত বিষয়গুলো নিশ্চিত করা থাকে তাহলে আপনি পেয়ে যাবেন।

ওয়েবসাইট ডিজাইনঃ

গুগল এডসেন্স পেতে হলে আপনাকে প্রথমে আপনার ওয়েবসাইটে একটি ভালো ইউজার ফ্রেন্ডলি ডিজাইন করতে হবে। 

আপনি যদি ব্লগার ব্যবহার করেন তাহলে আপনি বিভিন্ন ধরনের ব্লগার টেম্পলেট ব্যবহার করার মাধ্যমে আপনার ওয়েবসাইটের ডিজাইন নিয়ে নিশ্চিত থাকতে পারেন।

এছাড়াও আপনি ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করলেও বিভিন্ন ধরনের প্রিমিয়াম কিংবা ফ্রি ওয়ার্ডপ্রেস টেম্পলেট ব্যবহার করার মাধ্যমে আপনার ওয়েবসাইটের ডিজাইন নিয়ে আপনি নিশ্চিত থাকতে পারবেন।

এক্ষেত্রে আপনার ওয়েবসাইটের ডিজাইন এর সমস্ত কাজ গুলোই টেমপ্লেট ডেভলপার করে দিবে, শুধুমাত্র আপনাকে কিছু কাস্টমাইজ করতে হবে যা আপনি কিছু সময়ের মধ্যেই করে ফেলতে পারবেন। 

এবং এটা করার জন্য আপনাকে এইচটিএমএল সিএসএস জাভাস্ক্রিপ্ট কোড গুলো সম্পর্কে তেমন একটা ধারণার প্রয়োজন হবে না। 

তবে ওয়েবসাইট ডিজাইন করার জন্য আপনি চাইলে আপনার ওয়েবসাইটটিকে একদম সিম্পল ভাবে ইউজার ফ্রেন্ডলি করে গড়ে তুললে অ্যাডসেন্স অ্যাপ্রুভাল পাওয়ার বিষয়টি আরও সহজতর হয়ে যায়।

 ইউনিক আর্টিকেলঃ

অ্যাডসেন্স অ্যাপ্রুভাল পাওয়ার উপায় যেগুলো রয়েছে সেগুলোর মধ্যে অন্যতম এবং সবচেয়ে ভালো উপায় হল আপনার ওয়েবসাইটে ইউনিক আর্টিকেল পাবলিশ করা। 

আপনি যদি আপনার ওয়েবসাইটে ইউনিক আর্টিকেল পাবলিশ করতে ব্যর্থ হন তাহলে আপনার সাইট থেকে আপনি কখনোই গুগল অ্যাডসেন্স অ্যাপ্রুভাল পেতে পারবেন না।

এক্ষেত্রে আমাদের মনের মধ্যে অনেকেরই এরকম প্রশ্ন জাগে যে আমাদের সাইটে কতটি ইউনিক আর্টিকেল পাবলিশ করতে হবে? এবং এর সীমা কতটুকু হওয়া দরকার। 

অর্থাৎ আপনি যে আর্টিকেল পাবলিশ করবেন সেটি সাইজ কতটুকু হলে ভালো হয় এতে কতটুকু শব্দ যুক্ত করতে হবে।

এই প্রশ্নগুলোর একটি উত্তর হলঃ আপনি আপনার ওয়েবসাইটে যখন আর্টিকেল পাবলিশ করবেন তখন আপনার ওয়েবসাইটে আর্টিকেলগুলো যদি ইউনিক হয় তাহলে আপনি মাত্র 7-8 টি আর্টিকেল এর বিনিময়ে গুগল এডসেন্স পেতে পারেন। 

আবার আপনার আর্টিকেল এর সীমা 200 থেকে 300 শব্দের মধ্যে হলেও কোন সমস্যা নেই।

ভিজিটর আপনার সাথে সংযুক্ত হওয়ার ব্যবস্থাঃ

কোন ভিজিটর যদি আপনার ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে এবং সে আপনার ওয়েবসাইট সম্পর্কে বিভিন্ন ধরনের প্রশ্ন আপনাকে জানাতে চায় তাহলে সে অবশ্যই আপনার ওয়েবসাইটে এরকম কিছু করবে যার মাধ্যমে আপনার সাথে সংযুক্ত হতে চাইবে।

এক্ষেত্রে যখন আপনি গুগল অ্যাডসেন্স অ্যাপ্রুভাল পাওয়ার জন্য তাদের কাছে রিভিউ করার জন্য আপনার সাইট পাঠাবেন তখনই গুগল অ্যাডসেন্স এই বিষয়গুলোকে কর্তৃপক্ষ সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব সহকারে দেখে।

এছাড়াও আপনার ওয়েবসাইটকে রিলেটেড হিসেবে তৈরী করা হয়েছে আপনার ওয়েবসাইটে কি কি আর্টিকেল আপনি পাবলিশ করবেন এই সমস্ত বিষয় গুলো বেশি পর্যালোচনা করে। 

আপনার ওয়েবসাইটে আপনাকে অবশ্যই কয়েকটি পেইজ স্থাপন করতে হবে সেগুলোর মধ্যে অন্যতম হলো।

▪ Home

▪ About us

▪ Contact us 

আপনি যদি শুধুমাত্র উপরে উল্লেখিত তিনটি পেজ আপনার ওয়েবসাইটে সাথে সংযুক্ত করে নেন, তাহলে আপনি গুগল এডসেন্স খুব সহজেই পেয়ে যাবেন।

সোশ্যাল মিডিয়ায় আইকনঃ

আপনি যখন ওয়েবসাইট তৈরি করবেন তখন আপনারা আর্টিকেলগুলো ভালোভাবে প্রমোট করার জন্য আপনার ওয়েবসাইটে সোশ্যাল মিডিয়ায় আইকন গুলোকে ভালোভাবে সংযুক্ত করতে হবে।

বিভিন্ন ধরনের সোসিয়াল গণমাধ্যমের লিংক আপনার ওয়েবসাইটে যুক্ত করতে হবে।

আপনি যখন আপনার ওয়েবসাইট এ বিভিন্ন ধরনের জনপ্রিয় সোসিয়াল গণমাধ্যম হিসেবে ফেসবুক, টুইটার, ইনস্টাগ্রাম ইত্যাদির লিংক যুক্ত করে নিবেন। 

প্রথমে আপনার ওয়েবসাইটে থাকা ভিজিটর আপনার সাথে ভালোভাবে আন্ডারস্ট্যান্ডিং করতে পারবে।

এছাড়াও এটি আপনার ওয়েবসাইটের সৌন্দর্য এবং মান আরো বেশি বাড়িয়ে তুলবে এবং গুগোল অ্যাডসেন্সে পাওয়ার সক্ষমতাকে আরো বেশি পরিসরে বৃদ্ধি করবে।

আর উপরে উল্লেখিত প্রত্যেকটি বিষয় হল গুগল এডসেন্স পাওয়ার উপায় যেগুলোকে আপনি যদি স্কিপ করেন অথবা এড়িয়ে চলেন তাহলে আপনি গুগল এডসেন্স কখনোই পাবেন না।

তাই গুগল এডসেন্স পাওয়ার জন্য আপনাকে অবশ্যই উপরে উল্লেখিত বিষয়গুলো কে আপনার ওয়েবসাইটের সাথে সংযুক্ত করে নিতে হবে এবং এ বিষয়গুলো সম্পর্কে নিশ্চিত হতে হবে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

two × 4 =

close
Scroll to Top
Share via
Copy link