ই কমার্স বাংলাদেশ | বাংলাদেশে ই কমার্স এর ব্যবহার |

বর্তমান দুনিয়া অনেকটাই ইন্টারনেট নির্ভর হয়ে পড়েছে, বিশ্ববাসীরা তারা তাদের সমস্ত কাজগুলোকে ইন্টারনেটের সাথে মানিয়ে নিয়ে নিতে চায়। যাতে তারা কাজে আনন্দভোগ করতে পারে।

যুগের সাথে পাল্লা দিয়ে বাংলাদেশে বর্তমানে অনেকটাই ইন্টারনেট নির্ভর হয়ে পড়েছে, পূর্বের মত এখন আর আপনি চাইলে ইন্টারনেট কে এড়িয়ে চলে আপনার জীবনের পরিপূর্ণ তৃপ্তি কখনোই পাবেন না।

আর এরই ফলশ্রুতিতে বাংলাদেশে ই-কমার্স এর পথে অনেকটাই এগিয়ে গেছে। বর্তমান সময়ে তরুণ সমাজসহ যেকোনো ধরনের বয়সের ইন্টারনেট ব্যবহারকারীরা এদিকে খুব বেশি একটু নজর আরোপ করছে। 

কারণ পূর্বে আপনি যে কোন প্রোডাক্ট কিংবা পণ্য কিনতে হলে আপনাকে এদিক-সেদিক ঘুরে বেড়াতে হতো, এবং এর জন্য আপনাকে পণ্য ক্রয় করার পরেও এক্সট্রা অনেক টাকা পরিশোধ করতে হতো গাড়ি ভাড়ার জন্য। 

যা আপনি কোন ক্ষেত্রে চাইতেন না, এছাড়াও আপনি যদি কোন প্রোডাক্ট কেনার জন্য অন্যত্র ঘুরে বেড়ানোকে বেছে নেন তাহলে আপনার জন্য অনেকটাই রিস্ক হয়ে যায়। 

কারণ বর্তমান সময়ে বাংলাদেশের যোগাযোগ ব্যবস্থার ক্ষেত্রে নানা ধরনের ত্রুটি বিদ্যমান রয়েছে।

ব্যাপারটা এরকমই যে আপনি যদি দীর্ঘপথে যাত্রাবাড়ী দিয়ে আপনার পছন্দের পণ্যটি ক্রয় করতে চান তাহলে এটা করে বাড়ি অব্দি ফিরে আসবেন তার নিশ্চয়তা দেয়া খুবই কষ্টসাধ্য ব্যাপার।

তাছাড়া আপনি এত কষ্ট কেন করবেন?  কেনইবা জ্যামে আটকে থাকবেন ঘণ্টার পর ঘন্টা? আপনার কাজ গুলোকে বর্তমান সময়ের বাংলাদেশি ই-কমার্স অনেক সহজ করে দিয়েছে।

আপনি চাইলে ঘরে বসেই আপনার নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসগুলো খুব সহজেই করতে পারেন।

ই-কমার্স বাংলাদেশের যাত্রা খুব বেশি দিনের না হলেও বর্তমানে বাংলাদেশের সর্বাধিক ব্যবহার পরিলক্ষিত হচ্ছে।

বর্তমান সময়ে একটা লক্ষ্য করা যাচ্ছে যে যে কেউ মার্কেটে গিয়ে তাদের পণ্য ক্রয় করার চেয়ে অনলাইনের মাধ্যমে তাদের পণ্যগুলোকে ক্রয় করাকে বেশি মূল্যায়ন করছে।

এরই ফলশ্রুতিতে বাংলাদেশের রয়েছে কয়েকটি জনপ্রিয় ই-কমার্স ওয়েবসাইট যেগুলো সহযোগিতায় আপনি চাইলে খুব সহজেই প্রোডাক্ট করতে পারেন।

বাংলাদেশে ই-কমার্স এর কয়েকটি সাইটঃ



Daraz
Evaly
Rokomari
Ajkerdeal


উপরে উল্লেখিত সাইটগুলো হল বাংলাদেশ ই কমার্স সাইটের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত সাইট গুলোর মধ্যে অন্যতম কয়েকটি।

এছাড়াও বর্তমানে বাংলাদেশে ই-কমার্স সাইট ব্যবহার করার মাধ্যমে এদেশের জনগণের ভোগান্তির পরিমাণ আগের চেয়ে অনেকটা কমিয়ে দিয়েছে।

ওটা দেখা যাচ্ছে যে অনেকেই তাদের পছন্দের জিনিস ক্রয়  করার জন্য লম্বা ঘণ্টার পর ঘণ্টা দাঁড়িয়ে থাকতে হয়না।

পূর্বে বাংলাদেশে ই-কমার্সের ব্যবহারঃ



শুধু বাংলাদেশেই এর ব্যবহার তেমন একটি পরিলক্ষিত হয়নি, পূর্বের সময়ে বাংলাদেশের মানুষেরা এটাকে অনেকটা ভুয়া মনে করত। 

অর্থাৎ তারা কোনমতেই এটা কি বিশ্বাস করতে পারত না যে এর মাধ্যমে তারা ঘরে বসেই তাদের পণ্য গুলো পেয়ে যাবে।

তারা এটা মনে করত যে যদি তারা এখানে কোন টাকা পয়সা দিয়ে দেয়, তাহলে ওই ভুক্তভোগীরা টাকাগুলো মেরে খেয়ে যাবে।, তাই পূর্বের সময়ে বাংলাদেশে ই-কমার্স তেমন একটি ব্যবহার পরিলক্ষিত হয়নি।

বর্তমান সময়ে এই কমার্স বাংলাদেশের ব্যবহারঃ

বর্তমান সময়ে, ই কমার্স বাংলাদেশ নানাবিধ ব্যবহার করা হচ্ছে, এছাড়াও এই সময়টাতে যখন পুরো বিশ্ব করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত,  তখন যে কেউ ঘরের বাইরে না গিয়ে তাদের ঘরের ভিতরে বসে তাদের পণ্যগুলোকে হাতের নাগালে পেয়ে যাচ্ছে।

শুধু বর্তমান অবস্থা বিবেচনা করলে ভুল হবে, বেশ কিছু বছর ধরে বাংলাদেশের নানাবিধ ব্যবহার পরিলক্ষিত হচ্ছে তা দেখা যাচ্ছে যে বাংলাদেশ অনেকেই এটাকে বিশ্বাসের সাথে দেখছেন এবং এর সঠিক ব্যবহার করছেন।

আশা করা যায় দিন দিন ই কমার্স বাংলাদেশের খুব বেশি প্রতিষ্ঠিত হবে এবং এদেশের জনগণের একটি ব্যবহারে উদ্বুদ্ধ হবে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

nineteen − eighteen =

Scroll to Top
Share via
Copy link
Powered by Social Snap