ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম এবং যাবতীয় তথ্য |

বাংলাদেশের মোবাইল ব্যাংকিং খাতে সর্বপ্রথম যে ব্যাংক লক্ষ্যণীয় ভুমিকা পালন করেছে বা সর্বপ্রথম যে ব্যাংকের ল্যান্ড করে সেটি হলো ডাচ বাংলা ব্যাংক।

আপনি ডাচ বাংলা ব্যাংকের সহযোগিতায় ঘরে বসেই আপনার যেকোন ব্যাংকিং সেবা কার্যক্রম পরিচালিত করতে পারেন; তাও এক্সট্রা সিকিউরিটির সাথে।

স্টুডেন্ট কিংবা যে কোনো রকমের বিজনেসম্যান এর জন্য ডাচ বাংলা ব্যাংক  লক্ষ্যণীয় ভুমিকা পালন করে।আজকের ডাচ বাংলা ব্যাংক সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে।

পোস্টের ভিতরে যা থাকছে

ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খুলতে কি কি লাগে?

ডাচ বাংলা ব্যাংক এর অধীনে account খুলতে মূলত দুইটি প্রকারভেদ এর জন্য দুই রকমের ডকুমেন্টস এর প্রয়োজন হয়।

কারণ আপনি হয়তো অবগত আছেন ডাচ-বাংলা ব্যাংকের অধীনে আপনি দুইটা সমের একাউন্ট খুলতে পারেন।

এই দুই রকমের অ্যাকাউন্টগুলো হলোঃ

  • ডাচ বাংলা ব্যাংক স্টুডেন্ট একাউন্ট।
  • ডাচ বাংলা ব্যাংক সেভিং একাউন্ট।

মূলত এখানে দুই ধরনের ব্যাংক অ্যাকাউন্টের জন্য আপনাকে ভিন্ন ভিন্ন রকমের ডকুমেন্ট তাদেরকে প্রদান করতে হবে এবং একাউন্ট খোলার কাজ সম্পাদন করতে হবে।

ডাচ বাংলা ব্যাংক স্টুডেন্ট একাউন্ট খুলতে কি কি লাগে?

আপনি যদি ডাচ বাংলা ব্যাংক এর অধীনে একটি স্টুডেন্ট account খুলতে চান; তাহলে আপনাকে মূলত নিচের দেয়া ডকুমেন্টস গুলো দিতে হবে।

  • দুই কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি।
  • আপনার সর্বশেষ স্কুলের সার্টিফিকেট কিংবা ভর্তির ফরম অথবা বেতনের যেকোনো একটি সিট। ( এক্ষেত্রে আপনি অনার্স পড়ুয়া স্টুডেন্ট হলে; ডাচ বাংলা ব্যাংক স্টুডেন্ট একাউন্ট আপনার জন্য প্রযোজ্য হবে না।
  • আপনার একজন নমিনি এর প্রয়োজন হবে। যাতে করে আপনি মরে গেলে উনি টাকা তুলতে পারে।(এনআইডি কার্ড এবং এক কপি ছবি)
  • পূর্বে যার ডাচ-বাংলা এর অধীনে ব্যাংক একাউন্ট ছিল; সেই রকম একজন ব্যক্তি প্রয়োজন হবে। যে আপনার রেফারেন্স হিসেবে কাজ করবে। (অবশ্যই ওই ব্যক্তির এনআইডি কার্ড এবং এক কপি ছবি প্রয়োজন হবে)

মূলত স্টুডেন্ট একাউন্ট খোলার জন্য আপনাকে উপরে উল্লেখিত ডকুমেন্টস গুলো সংগ্রহ করতে হবে এবং তারপরেই নিকটস্থ কোনো ডাচ বাংলা ব্যাংকের ব্রাঞ্চ যোগাযোগ করতে হবে।

ডাচ বাংলা ব্যাংক সেভিং একাউন্ট খুলতে কি কি লাগে?

আপনি যদি ডাচ বাংলা ব্যাংকের অধীনে একটি সেভিং একাউন্ট খুলতে চান; তাহলে আপনাকে ভিন্ন ভিন্ন রকমের ডকুমেন্টস এর প্রয়োজন হবে।

  • প্রথমত আপনার পাসপোর্ট সাইজের ছবির প্রয়োজন হবে। ( দুই কপি হলে এই কাজ হয়ে যাবে)
  • আপনি আপনার যে কোন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ট্রেড লাইসেন্স এর একটি কপি তাদেরকে দিতে হবে।
  • আপনার ভোটার আইডি কার্ড এর ফটোকপি তাদেরকে দিতে হবে।
  • যাকে আপনি নমিনি হিসেবে নির্বাচন করতে চান তার এনআইডি কার্ডের ফটোকপি আপনাকে নিতে হবে; এবং সাথে ঐ ব্যক্তির এক কপি ছবি লাগবে।
  • রেফারেন্স হিসেবে যাকে আপনি নির্বাচন করতে চান; ওই ব্যক্তির এনআইডি কার্ডের ফটোকপি এবং তার একটি ছবি আপনাকে দিতে হবে।

মূলত স্টুডেন্ট একাউন্ট এবং সেভিং একাউন্ট খোলার জন্য আপনাকে উপরে উল্লেখিত ডকুমেন্টগুলো নিকটস্থ ব্রাঞ্চে প্রদান করতে হবে; এবং একাউন্ট খোলার জন্য আবেদন করতে হবে।

ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খুলতে কত টাকা লাগে?

আপনি যখনই উপরে উল্লেখিত ডকুমেন্টস গুলো সম্পর্কে অবহিত হয়ে যাবেন; তখন আপনি নিশ্চয়ই একটি কমন প্রশ্ন করবেন- ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খুলতে কত টাকা লাগে?

এখানে একটি বিষয় লক্ষমান আপনি যত টাকাই ডাচ বাংলা ব্যাংক Account খোলার জন্য ব্যয় করেন না কেন, সেগুলো কিন্তু আপনার কোন ক্ষতির কারণ হবে না।

উদাহরণস্বরুপঃ আপনি যদি 100 টাকা ব্যয় করেন তাহলে সেটি আপনার ব্যাংক account থেকে যাবে; এইটাকে আপনি কোনোভাবেই ব্যয় করতে পারবেন না।

ডাচ বাংলা ব্যাংক account খুলতে কত টাকা লাগে? মূলত ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খুলতে হলে; আপনাকে 100 থেকে 500 টাকা আপনার একাউন্টে জমা করতে হয়।

এবার আপনি যদি টাকার পরিমাণ আরো বেশি বৃদ্ধি করতে চান তাহলেও পারবেন। তবে ন্যূনতম 100 টাকা আপনার একাউন্টে জমা রাখতে হবে, আর এটি আপনার ব্যাংক একাউন্টে সব সময় থাকবে।

ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট ফরম

ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খোলার জন্য আপনাকে মূলত তাদের দেয়া যে ফ্রম রয়েছে সেটি ফিলাপ করতে হয়। এই ফরমটি মূলত আপনি ফিলাপ করে আপনার গুরুত্বপূর্ণ ডকুমেন্টস গুলো সম্পর্কে তাদেরকে অবহিত করেন।

তবে আপনি চাইলে ইন্টারনেট কে কাজে লাগিয়ে ডাচ বাংলা ব্যাংকের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট থেকে এই ফর্ম ডাউনলোড করে তারপরে সহজে ফিলাপ করতে পারেন।

এর পরে আপনি চাইলেএটিকে প্রিন্ট আউট করে তারপরে আপনার ডাচ বাংলা ব্যাংকের নিকটস্থ ব্রাঞ্চে জমা দেয়ার মাধ্যমে আপনার একাউন্ট খোলার কাজ সম্পাদন করতে পারেন।

ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট ফরম ডাউনলোড 

যখনই আপনি উপরে উল্লেখিত লিংক থেকে ডাচ বাংলা ব্যাংক account ফরম ডাউনলোড করে নিবেন; তখন আপনি চাইলে এটিকে প্রিন্ট আউট করে ফিলাপ করতে পারবেন।

এখানে একটি বিষয় লক্ষ্য রাখতে হবে আর সেটা হলো আপনি যে ফরম ডাউনলোড করবেন; সেটি অবশ্যই উপরে উল্লেখিত লিংক থেকে কিংবা ডাচ-বাংলা ব্যাংকের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট থেকে ডাউনলোড করে নিবেন।

ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম

আপনি যদি ডান্স বাংলা ব্যাংক account খুলতে চান? তাহলে আপনাকে যে সমস্ত কাজ step-by-step করে যেতে হবে সেগুলো নিচে বর্ণনা করা হলো।

  • প্রথমে আপনাকে এই বিষয়ে সিলেক্ট করে নিতে হবে যে আপনি আসলে ডাচ বাংলা ব্যাংক এর স্টুডেন্ট একাউন্ট খুলতে চাচ্ছেন; নাকি সেভিং একাউন্ট খুলতে চাচ্ছেন।
  • যখনই আপনার সিলেকশন সম্পন্ন হয়ে যাবে তখন আপনাকে উপরে উল্লেখিত যে সমস্ত ডকুমেন্ট বিভিন্ন অ্যাকাউন্টের জন্য মেনশন করা হয়েছে; সেই সমস্ত অ্যাকাউন্ট রিলেটেড ডকুমেন্টস সংগ্রহ করতে হবে।
  • এবার আপনি চাইলে এই ওয়েবসাইট থেকে ডাউনলোড কৃত কর্মের লিংক দেয়া হয়েছে সেটি ডাউনলোড করে প্রিন্ট আউট করতে পারবেন; অথবা নিকটস্ত ব্রাঞ্চে গিয়ে সেটি কালেক্ট করে নিতে পারবেন।
  • আপনি যখনই তাদের দেয়া ফরম ফিলাপ করে নিবেন তখন তারা আপনাকে আপনার অন্যান্য ইনফর্মেশন গুলো এই একাউন্টে সম্পৃক্ত করে দিবে
  • এক্ষেত্রে অবশ্যই আপনি যে রেফারেন্স কৃত ব্যক্তি সহযোগিতায় একাউন্ট খুলতে চান ; ওই ব্যক্তি কে সাথে নিয়ে যাবেন।

যখনই আপনি উপরে উল্লেখিত পন্থাগুলো অবলম্বন করে নিবেন তখন আপনি তাদের কাছে আপনার ফরম জমা দিবেন; এবং একাউন্ট মূলত দুই থেকে তিনদিনের মধ্যেই অ্যাক্টিভ হয়ে যাবে।

ডাচ বাংলা ব্যাংক account খোলার নিয়ম মূলত উপরে উল্লেখিত সহজ পন্থা; তবে একাউন্ট খোলার জন্য অবশ্যই আপনাকে নিকটস্থ ব্রাঞ্চে কিংবা ডাচ-বাংলা ব্যাংকের শাখায় সরোজমিনে উপস্থিত থাকতে হবে।

ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট কোড

আপনি যদি ডাচ বাংলা ব্যাংকের মোবাইল ব্যাংকিং এর অধীনে একটি account খোলেন; তাহলে আপনাকে ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট কোড সংগ্রহ করতে হবে।

ডাচ বাংলা ব্যাংক account কোড হলঃ “ *322#” ; যার মাধ্যমে আপনি আপনার অ্যাকাউন্টের সমস্ত ইনকোয়ারি করতে পারবেন। এছাড়া ঐ সমস্ত জানতে তাদের হেলপ্লাইন এর সাথে সম্পৃক্ত হতে পারেন।

ডাচ-বাংলা ব্যাংকের হেল্পলাইন নাম্বার হলো: “16216”। যেখান থেকে আপনি এই সংক্রান্ত নানা তথ্য কালেক্ট করে নিতে পারবেন।

ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট চার্জ

আপনি যদি ডাচ বাংলা ব্যাংক account খোলা সম্পন্ন করে নেন; তাহলে আপনার ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট চার্জ প্রযোজ্য হবে। তবে ভিন্ন ভিন্ন একাউন্টের জন্য আপনার ভিন্ন ভিন্ন চার্জ প্রযোজ্য হবে।

কারণ আপনি এই পোস্টটি থেকে অলরেডি এই সম্পর্কে অবহিত হয়ে গেছেন; যে আপনি ডাচ বাংলা ব্যাংকে একাউন্টে স্টুডেন্ট account এবং সেভিং account খুলতে পারেন।

আর স্টুডেন্ট একাউন্ট এবং সেভিং একাউন্ট এর জন্য মূলত আপনাকে ভিন্ন ভিন্ন চার্জ গুনতে হবে। ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট চার্জ কত সেটি সম্পর্কে জানুন নিম্নরূপেঃ

ডাচ বাংলা ব্যাংক স্টুডেন্ট একাউন্ট চার্জ

আপনার ডাচ বাংলা ব্যাংক স্টুডেন্ট একাউন্টের জন্য যে চার্জ প্রযোজ্য হবে; সেটি মূলত প্রতি বছরে আপনার একাউন্ট থেকে কালেক্ট করা হবে।

এক্ষেত্রে ডাচ বাংলা ব্যাংক স্টুডেন্ট account চার্জ হিসেবে আপনার account থেকে প্রতি বছরে প্রায় 200 টাকা কাটা হবে; অর্থাৎ প্রতি বছরের জন্য স্টুডেন্ট একাউন্ট চার্জ “200 টাকা”।

ডাচ বাংলা ব্যাংক সেভিং একাউন্ট চার্জ

আপনি যদি ডাচ বাংলা ব্যাংকের অধীনে একটি সেভিং একাউন্ট খুলেন; তাহলে আপনার জন্য প্রতি বছরে একটু বেশি টাকা চার্জ প্রযোজ্য হবে।

ডাচ বাংলা ব্যাংক সেভিং একাউন্ট চার্জ হিসেবে প্রতি বছর আপনার একাউন্ট থেকে 300 টাকা মাইনাস করা হয়ে যাবে। ডাচ বাংলা ব্যাংক সেভিং একাউন্ট চার্জ হল = “300 টাকা”

এছাড়াও ডাচ-বাংলা ব্যাংকের অধীনে আরো বিভিন্ন রকমের চার্জ লক্ষণীয়; এগুলো মূলত আপনাকে ভিন্ন ভিন্ন কাজ সম্পাদনের জন্য পরিশোধ করতে হয়।

ডাচ বাংলা ব্যাংকের সমস্ত সার্ভিস চার্জ এর একটি লিস্ট নিচে দেয়া হল; এখান থেকে আপনি ডাচ বাংলা ব্যাংক চার্জ সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারবেন।

ডাচ বাংলা ব্যাংক সার্ভিস চার্জশিট 

আশাকরি এবার আপনি সমস্ত সার্ভিস চার্জ সম্পর্কে জেনে নিতে পেরেছেন এবং এই সম্পর্কে আপনার কোন সমস্যা হবে না।

ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট ব্যালেন্স চেক

আপনার যদি ডাচ বাংলা মোবাইল ব্যাংকিং এর account থাকে তাহলে নিশ্চয়ই আপনি আপনার একাউন্টের ব্যালেন্স ইনকোয়ারি করতে চাইবেন।

এই সমস্ত কাজ গুলো সম্পাদনের উপায় মূলত তিনটি; আর সেগুলো হলোঃ

  • নিকটস্থ এটিএম বুথ।
  • ডাচ বাংলা ব্যাংক ইন্টারনেট ব্যাংকিং একাউন্ট।
  • ডাচ বাংলা মোবাইল ব্যাংকিং অ্যাপস।

আপনি মূলত উপরে উল্লেখিত তিনটি উপায়ে খুব সহজেই আপনার ডাচ বাংলা ব্যাংক  ব্যালেন্স চেক করতে পারবেন।

কিভাবে এই কাজগুলো সম্পাদন করবেন নিচে উল্লেখ করা হলোঃ

নিকটস্থ এটিএম বুথ

আপনি যদি আপনার আশেপাশে থাকা ডাচ-বাংলা ব্যাংকের অধীনে কোন একটি এটিএম বুথ পেয়ে যান; তাহলে আপনি খুব সহজেই এর সাহায্যে আপনার একাউন্ট ব্যালেন্স চেক করতে পারবেন।

ব্যালেন্স চেক করার জন্য অবশ্যই আপনাকে আপনার সাথে ডাচ-বাংলা ব্যাংকের যে নেক্সাস পে কার্ড রয়েছে সেটি নিয়ে যেতে হবে; এবং তারপর এটি এটিএম বুথে লোড করতে হবে।

যখনই আপনি এটি আপনার নিকটস্থ কোন এটিএম বুথের মধ্যে প্রবেশ করিয়ে দিবেন; তখন আপনাকে আপনার একাউন্টের পাসওয়ার্ড দেয়ার জন্য রিকমেন্ড করবে এবং এখানে আপনার নেক্সাস পে কার্ড এর পাসওয়ার্ড দিয়ে তারপর একসেস নিতে হবে।

সমস্ত বিষয় গুলো Access নেয়ার জন্য আপনি মূলত প্রত্যেকটি অপশন এর পাশে একটি করে বুতাম পাবেন; যে কোন কাজ করার জন্য আপনাকে পাশের বাটনটিতে ক্লিক করতে হবে।

আপনি যেহেতু আপনার একাউন্ট ব্যালেন্স চেক করতে চান; তাই আপনাকে আপনার পাসওয়ার্ড দেওয়ার পরে এটিএম বুথ এর বাম পাশে থাকা ব্যালেন্স স্টেটমেন্ট এর পাশে থাকা বাটনে ক্লিক করতে হবে।

এটিএম বুথ থেকে ব্যালেন্স চ্যাক
এটিএম বুথ থেকে ব্যালেন্স চ্যাক

মূলত আপনি এখানে ক্লিক করার পর আপনার অ্যাকাউন্টের স্টেটমেন্ট দেখতে পারবেন। আর এভাবেই আপনি এটিএম বুথের মাধ্যমে আপনার ব্যাংক ব্যালেন্স চেক করবেন।

ডাচ বাংলা ব্যাংক ইন্টারনেট ব্যাংকিং একাউন্ট এর মাধ্যমে ব্যালেন্স চেক

ইন্টারনেট ব্যাংকিং একাউন্টের মাধ্যমে আপনার ব্যালেন্স চেক করতে চান তা হলে প্রথমত আপনাকে একটি ইন্টারনেট ব্যাংকিং একাউন্ট খুলে নিতে হবে।

আরো পড়ুন: কিভাবে ডাচ বাংলা ব্যাংক ইন্টারনেট ব্যাংকিং একাউন্ট খুলবেন?

যখনই আপনি ডাচ-বাংলা ব্যাংক এর অধীন একটি ইন্টারনেট ব্যাংকিং একাউন্ট খুলে ফেলবেন; তখন আপনি চাইলে এখানে লগইন করতে পারবেন।

এবং লগইন করা সম্পন্ন হয়ে গেলে আপনি আপনার অ্যাকাউন্টের সমস্ত মিনি স্টেটমেন্ট দেখতে পারবেন; এবং আপনার একাউন্টের ব্যালেন্স চেক করতে পারবেন।

ডাচ বাংলা ব্যাংক মোবাইল ব্যাংকিং অ্যাপস এর মাধ্যমে ব্যালেন্স চেক

আপনি আরেকটি উপায়ও খুব সহজেই ঘরে বসে আপনার ডাচ বাংলা ব্যাংক account চেক করতে পারবেন; এজন্য আপনাকে ডাচ বাংলা ব্যাংকের অফিসিয়াল মোবাইল ব্যাংকিং অ্যাপ এর সহযোগিতা নিতে হবে।

প্রথমে নিচের দেয়া লিঙ্ক থেকে ডাচ বাংলা মোবাইল ব্যাংকিং এর অফিশিয়াল নেক্সাস পে অ্যাপস টি ডাউনলোড করে নিন।

নেক্সাস পে এপ ডাউনলোড

যখনই অ্যাপটি ডাউনলোড করা সম্পন্ন হয়ে যাবে; তখন আপনাকে এখানে আপনার ব্যাংক অ্যাকাউন্ট দিয়ে একটি অ্যাকাউন্ট ওপেন করে নিতে হবে।

মূলত অ্যাকাউন্ট তৈরি করার জন্য আপনাকে আপনার ফোন নাম্বার প্রোভাইড করতে হবে। তবে মনে রাখবেন; আপনি ব্যাংক একাউন্ট খোলার জন্য যে নাম্বার দিয়েছিলেন সেই নাম্বারটি এখানে দিবেন।

নাম্বার দেয়ার পরে তারা ভেরিফিকেশনের জন্য আপনাকে ডাচ বাংলা ব্যাংক হেল্পলাইন নাম্বারে কল দেয়ার জন্য বলবে । আপনাকে মূলত “16216” এই নাম্বারে কল দিতে হবে এবং তার পরে তাদের কে আপনার একাউন্ট সম্পর্কিত ডিটেলস বর্ণনা করতে হবে।

অল ডিটেইলস হিসেবে তারা আপনার কাছ থেকে যে সমস্ত বিষয়গুলো জানতে চাইবে সেগুলো হলোঃ

  • আপনার ব্যাংক একাউন্টের নাম।
  • ব্যাংক একাউন্ট নাম্বার।
  • আপনার অভিভাবকের নাম।
  • এবং আপনার জন্ম তারিখ ইত্যাদি।

আপনি যখনই তাদেরকে উপরে উল্লেখিত ডকুমেন্টগুলো দিয়ে দিবেন; তখন তারা আপনাকে আপনার নেক্সাস পে একাউন্ট ভেরিফিকেশন করতে সহযোগিতা করবে।

এবং যখনই আপনি নেক্সাস পে একাউন্ট ভেরিফিকেশন সম্পন্ন করে ফেলবেন; তখন আপনি চাইলেই এই অ্যাপসটিতে লগইন করতে পারবেন।

আরো পড়ুনঃ রকেট মোবাইল ব্যাংকিং এপ এর সুবিধা।

অ্যাপটিতে আপনি যখন আপনার অ্যাকাউন্ট নাম্বার এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করে নিবেন; তখন আপনি এই অ্যাপসের মাধ্যমে বিভিন্ন রকমের কাজ সম্পাদন করতে পারবেন।

এগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলোঃ

  • ফান্ড ট্রান্সফার।
  • মোবাইল রিচার্জ।
  • ব্যালেন্স ইনকোয়ারি।
  • মিনি স্টেটমেন্ট।
  • অনেকগুলো কার্ড সংযুক্ত করা।
  • অনলাইন শপিং ইত্যাদি।

আপনি চাইলে এই অ্যাপসের মাধ্যমে খুব সহজেই আপনার ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট এর মিনি স্টেটমেন্ট দেখতে পারবেন। অর্থাৎ কখন আপনি কত টাকা লেনদেন করেছিলেন সেই সম্পর্কে জানতে পারবেন।

নেক্সাস পে এপ
নেক্সাস পে এপ

খুব সহজেই আপনি আপনার ডাচ বাংলা ব্যাংক এর account ব্যালেন্স চেক করতে পারবেন সেই সম্পর্কে আপনি বিস্তারিত জেনে গেছেন; এভাবেই মূলত আপনি আপনার একাউন্টে ব্যালেন্স চেক করবেন।

ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট বন্ধ করার নিয়ম

কোন সমস্যা হয় একারণে আপনি যদি ডাচ বাংলা ব্যাংক account বন্ধ করার নিয়ম সম্পর্কে জানতে চান তাহলে আপনাকে মূলত নিম্নলিখিত নিয়ম মান্য করতে হবে।

ডাচ বাংলা ব্যাংক account বন্ধ করার জন্য-

  • প্রথমে আপনার ডাচ-বাংলা ব্যাংকের নিকটস্থ ব্রাঞ্চে যোগাযোগ করতে হবে।
  • আপনি কোন কারণে একাউন্ট বন্ধ করতে চান; সেই সম্পর্কে তাদের জানাতে হবে।
  • অথবা আপনি চাইলে ডাচ বাংলা মোবাইল ব্যাংকিং হেল্পলাইন রয়েছে সেই নাম্বারে যোগাযোগ করে আপনার অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে নিতে পারবেন।

আপনি যখনই আপনার অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে নিবেন; তখন ডাচ-বাংলা ব্যাংক একাউন্টের সাথে লেনদেন এরপরে আপনার যতগুলো টাকা সেই হয়েছে সে সমস্ত টাকাগুলো আপনি উইথ ড্র করতে পারবেন।

আশাকরি ডাচ-বাংলা ব্যাংক এ যে সমস্ত তথ্যগুলি আপনার জানা দরকার সেই সমস্ত তথ্য সম্পর্কে আপনি সম্পূর্ণ ধারণা নিতে পেরেছেন।

Leave a Comment

6 + 4 =