দারাজ অনলাইন শপিং বাংলাদেশ

আপনি যদি অনলাইন থেকে কোন একটি পণ্য ক্রয় করতে চান, তাহলে আপনার অন্যতম সহযোগী হতে পারে দারাজ। দারাজ অনলাইন শপিং বাংলাদেশ কিভাবে সম্পন্ন করবেন?

দারাজ অনলাইন শপিং বাংলাদেশ যেভাবে সম্পন্ন করতে হবে অর্থাৎ বাংলাদেশ থেকে যেভাবে দারাজ অনলাইন শপিং করতে হবে, সেই সম্পর্কে এই আর্টিকেলের আলোকপাত করা হবে।

দারাজ অনলাইন শপিং বাংলাদেশ

আপনি যদি দারাজ থেকে অনলাইন শপিং করতে চান, তাহলে আপনি চাইলে সেই কাজটি দুইটি ভিন্ন উপায়ে সম্পন্ন করতে পারবেন।

এর মধ্যে থেকে একটি হল দারাজ এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইট ব্যবহার করার মাধ্যমে সেই কাজটি করতে পারবেন এবং অন্যটি হলো দারাজ অ্যাপ ডাউনলোড করার মাধ্যমে।

এই দুইটি উপায়ের মধ্যে থেকে সবচেয়ে সহজ ভাবে আপনি যদি শপিং করতে চান, তাহলে দারাজের অফিশিয়াল অ্যাপ ব্যবহার করতে পারেন।

অ্যাপ ব্যবহার করার মাধ্যমে আপনি যদি শপিং করতে চান, তাহলে প্রথমত নিম্নলিখিত লিংক থেকে সফটওয়্যার গুলো ডাউনলোড করে নিন।

Download for Android

Download for IOS

উপরে উল্লেখিত লিংক থেকে সফটওয়্যার ডাউনলোড করে নেয়ার কাজ সম্পন্ন হয়ে গেলে এবার সফটওয়্যারটির মধ্যে প্রবেশ করুন এবং আমার দেখানো নির্দেশনা অনুযায়ী কাজ চালিয়ে যান।

যখনই, আপনি সফটওয়্যারটির মধ্যে প্রবেশ করবেন তখন নিম্নলিখিত স্ক্রীনশটএর মত একটি পেইজ দেখতে পারবেন এবং এই সফটওয়্যার এর উপরের দিকে একটি সার্চ করে দেখতে পারবেন।

এখানে যে সার্চবার হয়েছে, সেই সার্চবারে আপনার পছন্দের যে কোন একটি কিওয়ার্ড সার্চ করে নিতে পারেন। যা আপনি ক্রয় করতে চান।

অর্থাৎ, আপনি যদি টি-শার্ট পরে করে নিতে চান, তাহলে এখানে টি-শার্ট লিখে সার্চ করে দিন। তাহলেই যে সমস্ত টি-শার্ট বর্তমানে দারাজে এভেলেবেল রয়েছে, সেগুলো সম্পর্কে অবগত হতে পারবেন।

দারাজ অনলাইন শপিং বাংলাদেশ
যখনই টি-শার্ট লিখে সার্চ করবেন এবং আপনার পছন্দের একটি টি-শার্ট পেয়ে যাবেন তখন, নিচের দিকে Buy now নামের একটি অপশন পাবেন সেই অপশনটি উপরে ক্লিক করে দিন।

এছাড়াও, আপনি যদি আরো বেশি পরিমাণে শপিং করতে চান, তাহলে Add to cart নামের একটি অপশন পাবেন। সেই অপশনটি উপরে ক্লিক করে দিতে পারেন।

এই অপশনটির উপরে ক্লিক করে দিলে, আপনি চাইলে আরো বিভিন্ন রকমের প্রোডাক্ট কার্টে যুক্ত করতে পারবেন এবং তারপরে একসাথে সেগুলো কিনে নিতে পারবেন।

তবে আপনি এখন যেহেতু শুধুমাত্র একটি টি-শার্ট ক্রয় করতে চান, সে জন্য সেই টি-শার্টটি পছন্দ করে নেয়া হয়ে গেলে Buy now নামের যে বাটনটি পাবেন, সেই বাটনটি ক্লিক করে দিন।

দারাজ অনলাইন শপিং বাংলাদেশ

যখনই আপনি বাটনটির উপরে ক্লিক করে দেবেন, তখন আপনার সামনে আরো অনেকগুলো অপশন ওপেন হবে।

অর্থাৎ আপনি যেহেতু টি-শার্ট ক্রয় করতে চান, সে জন্য আপনার টি শার্টের সাইজ এবং আপনার পছন্দ অনুযায়ী কালার সেখান থেকে সিলেক্ট করে নিতে পারবেন।

এছাড়াও আপনি যদি টি-শার্ট ক্রয় করতে চান, সেটি ও এখান থেকে সিলেক্ট করে নিতে পারবেন। সমস্ত কিছু সিলেক্ট করে নেয়া হয়ে গেলে আবার Buy now নামের যে বাটনটি পাবেন, সেটি উপরে ক্লিক করে দিন।

দারাজ অনলাইন শপিং বাংলাদেশ

যখন আপনি এই অপশনটির উপরে ক্লিক করে দিবেন, তখন আপনার সামনে অন্য আরেকটি পেজ ওপেন হবে। সেখান থেকে দারাজ একাউন্ট তৈরী করে নিতে হবে।

আপনি চাইলে ফেইসবুকের মাধ্যমে কিংবা আপনার ফোন নাম্বারের মাধ্যমে অথবা গুগল একাউন্টের মাধ্যমে একাউন্ট তৈরী করে নিতে পারবেন।

এই তিনটি অপশনের মধ্যে যেকোনো একটি অপশনের মাধ্যমে দারাজ একটি একাউন্ট তৈরি করে নিন। তাহলে আপনি পরবর্তী অপশনে চলে যেতে পারবেন।

একাউন্ট তৈরী করার পূর্বে আপনাকে অবশ্যই তাদের টার্মস এবং কন্ডিশনে একমত পোষণ করতে হবে। তাহলে আপনি অ্যাকাউন্ট তৈরি করার কাজে এগোতে পারবেন।

এবার, আপনি গুরুত্বপূর্ণ একটি স্টেপে চলে যেতে পারবেন, যেখান থেকে আপনি আপনার এড্রেস এবং অন্যান্য ইনফরমেশন গুলো সেভ করে নিতে পারেন।

অর্থাৎ আপনি যেই লোকেশনে এই পণ্যটি নিয়ে আসতে চান, সেটি আপনাকে এখান থেকে সিলেক্ট করে নিতে হবে। এবং আপনার লোকেশন টি যথাযথভাবে বসিয়ে দিতে হবে।

এই কাজটি করার জন্য, একাউন্ট তৈরী করার পরে যে পেজটিতে আপনি যাবেন, সেই পেজটির উপরে Add Adress নামের একটি অপশন দেখতে পাবেন। সেই অপশনটির উপরে ক্লিক করে দিন।

দারাজ অনলাইন শপিং বাংলাদেশ

যখন আপনি এই অপশনটি উপরে ক্লিক করে দিবেন, তখন আপনি আপনার লোকেশন পুরোপুরিভাবে সেখান থেকে সিলেক্ট করে নিতে পারবেন।

দারাজ আপনার কাছ থেকে যে সমস্ত ইনফরমেশন গুলো জেনে নিতে চায়, সে সমস্ত ইনফরমেশন গুলো যথাযথভাবে বসিয়ে দিন।

যখনই আপনি আপনার এড্রেসটা যথাযথভাবে বসিয়ে দিবেন এবং তারপরে সেটি সিলেক্ট করে নেবেন, তখন আপনি নিম্নলিখিত স্ক্রীনশটএর মত একটি পেজে চলে আসতে পারবেন।

এবার আপনি এই পেজটি ভাল ভাবে মনোযোগ সহকারে পড়ে নেয়ার পরে Procced to pay নামের অপশনটিতে ক্লিক করে দিন।

পে এর উপরে ক্লিক করে দেয়ার করে এবার আপনি চাইলে, বিকাশ, রকেট বা আরো অন্যান্য পেমেন্ট অপশনের মাধ্যমে পে করে দিতে পারবেন কিংবা আপনি চাইলে পণ্যটি হাতে পাওয়ার পরে পেমেন্ট করতে পারবেন।

পণ্যটি হাতে পর পরে আপনি যদি পেমেন্ট করতে চান, তাহলে এখানে থাকা অনেকগুলো অপশন এর মধ্যে থেকে Cash on Delivary নামের অপশন টি পাবেন, সেই অপশনটির উপরে ক্লিক করে দিন।

Cash on Delivery অপশন এর উপরে ক্লিক করে দেয়ার পরে একদম সর্বশেষে আপনাকে অর্ডারটি কনফার্ম করে নিতে হবে।

অর্ডারটি কনফার্ম করে নেয়ার জন্য Confirm order নামের যে বাটনটি পাবেন, সেই বাটনের উপরে ক্লিক করে দিন। তাহলেই আপনার অর্ডারটি কনফার্ম হয়ে যাবে।

অর্ডার কনফার্ম হয়ে গেলে আপনি একটি মেইল পাবেন, সেই মেইলে আপনার অর্ডার সম্পর্কে বিস্তারিত দেয়া থাকবে।

এছাড়াও আপনাকে জানিয়ে দেয়া হবে, সেই অর্ডারটি কখন আপনার নির্দিষ্ট জায়গায় পৌঁছে দেয়া হবে?

উপরে উল্লেখিত উপায় যে কেউ চাইলে খুব সহজেই দারাজ অনলাইন শপিং বাংলাদেশ এর কাজ সম্পন্ন করতে পারবেন।

এবং ঘরে বসেই দারাজের কিংবা ওয়েবপেজ ব্যবহার করার মাধ্যমে খুব সহজেই দারাজ থেকে অনলাইন শপিং করতে পারবে।

দারাজ এর প্রোডাক্ট গুলো কি অরিজিনাল?

যেকোনো অনলাইন প্লাটফর্ম থেকে যেকোনো একটি পণ্য ক্রয় করার পূর্বে আমাদের মনের মধ্যে এরকম একটি প্রশ্ন হরহামেশাই ঘুরপাক খায়, আর সেটি হল ক্রয় কৃত পণ্য কি অরিজিনাল?

আপনি দারাজ থেকে কোনো একটি প্রোডাক্ট কিনেন, তাহলে কেউই এরকম গ্যারান্টি দিতে পারবেন না, আপনি যে প্রোডাক্টটি দেখেছেন সেই প্রোডাক্টটিই অরিজিনাল ভাবে আপনার হাতে আসবে।

অর্থাৎ যে কেউ চাইলে আপনাকে নকল প্রোডাক্ট হাতে ধরিয়ে দিতে পারেন। তবে দারাজের ক্ষেত্রে এই বিষয়টি খুবই কম দেখা যায়।

কম দেখা যায় বলে আপনি যদি সেই কম মানুষের মধ্যে পড়ে যান তাহলে, দুর্ভোগের শিকার আপনিই হবে।

তবে, আমি কোন ভাবে আপনাকে হতাশ করছি না। আপনি চাইলে এখান থেকে পণ্য ক্রয় করতে পারেন এবং আপনার প্রয়োজন পুষিয়ে নিতে পারেন।

আপনি চাইলে যেহেতু প্রোডাক্ট গুলো পুনরায় ফেরত দিতে পারেন। সেজন্য , কোন একটি অবাঞ্চনীয় প্রোডাক্ট পাওয়ার পরে যদি সেটা নকল হয় তাহলে, ফেরত অপশন দয়লেয়ার থাকার কারণে আপনাকে হতাশ হতে হবে না।

শেষ কথাঃ দারাজ অনলাইন শপিং বাংলাদেশ করার ক্ষেত্রে আপনি হয়তো অনেক সময় প্রতারণার শিকার হতে পারেন, আবার অনেক সময় আপনার কাংখিত পণ্যটি হাতে পেয়ে যেতে পারেন।

তবে আপনি যদি এখান থেকে কোন রকমের পোশাক ক্রয় করার চেষ্টা করেন, তাহলে প্রতারণার শিকার হওয়ার সম্ভাবনা খুবই বেশি।

কিন্তু অন্যান্য যে সমস্ত গেজেট রয়েছে। যেমন ইলেকট্রিক্যাল গেজেট কিংবা অন্য যে কোনো রকমের গেজেট, সেগুলো ক্রয় করলে প্রতারণার শিকার হওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম থাকে।

তবে তার পরেও কোন একটি পণ্য ক্রয় করে নেয়ার পূর্বে আপনাকে সেই পণ্য সম্পর্কে ভালোভাবে অবগত হতে হবে। এবং এই পণ্যের যে বিক্রেতা রয়েছে, তার সাথে যোগাযোগ করে নিতে হবে।

তাহলে প্রতারিত হওয়ার সম্ভাবনা অনেকাংশে কমে আসবে।

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Scroll to Top
Share via
Copy link