বিকাশ একাউন্ট হ্যাক হলে করণীয় কি?

আপনার কোন ত্রুটির কারণে যদি আপনি আপনার বিকাশ অ্যাকাউন্ট হ্যাকিংয়ে সম্মুখীন হয়; তাহলে বিকাশ একাউন্ট হ্যাক হলে করণীয় সম্পর্কে জানা আপনার জন্য আবশ্যক।

কারণ প্রায়শই দেখা যায় আমরা নানা রকমের প্রতারণার শিকার হয়ে আমরা আমাদের বিকাশ একাউন্ট এর সমস্ত টাকা হারাতে বসি। প্রতারক চক্র আমাদের অ্যাকাউন্ট হ্যাক করে নেয়।

বিকাশ একাউন্ট হ্যাকিং সংক্রান্ত সমস্যার মধ্যে পতিত হওয়ার মূলহোতা আপনি। বিকাশ একাউন্ট হ্যাক হওয়ার যে প্রতারক চক্র রয়েছে তারা আপনার ইনফরমেশন এর সহযোগিতায় আপনার অ্যাকাউন্ট হ্যাক করে নেয়।

বিকাশ হ্যাক কিভাবে করে?

হ্যাকাররা মূলত বিভিন্ন উপায়ে আপনার বিকাশ একাউন্ট হ্যাক করে নিতে পারে। তবে যে সমস্ত বিকাশ হ্যাকার আপনার বিকাশ একাউন্ট হ্যাক করে নিবে তাদের অবশ্যই আপনার ইনফরমেশন এর প্রয়োজন হবে।

এই বিষয়টিকে উদাহরণ সহকারে আপনাদের সামনে উপস্থাপন করা যাকঃ ধরেন আপনার বিকাশ একাউন্টে 10000 টাকা বা আরো বেশি পরিমাণে টাকা ক্যাশ ইন হয়েছে।

এবার কোন প্রতারক চক্র যেকোন উপায়ে হক যদি এই বিষয়টি জেনে নেয়; তাহলে নিশ্চয়ই আপনার বিকাশের যে নাম্বার রয়েছে তাতে কল দিবে।

আপনাকে কল দেয়ার পরে ওই প্রতারক চক্র আপনাকে সম্পর্কে অবগত করতে পারবে। যে এই মুহূর্তে আপনার একাউন্টে কত টাকা ক্যাশ ইন হয়েছে; এই সমস্ত ইনফরমেশন গুলো তারা যেকোনো পাবলিক প্লেস থেকে নিয়ে নিতে পারে।

আপনি যখনই তাদের দেয়া ইনফরমেশন গুলো সবদিক বিবেচনা করবেন; তখন আপনি মনে করবেন যে হয়তো তারা বিকাশ কাস্টমার কেয়ারের কোন মানুষ।

এছাড়াও ব্যাপারটি আরেকটু ভিন্নভাবে আপনার সাথে ঘটতে পারে; আর সেটা হলঃ তারা আপনাকে বিভিন্ন অফারের প্ররোচনা মধ্যে ফেলতে পারে। যেখানে পা দিলেই ঘটতে পারে বিপদ।

অফার বলতে প্রতারক চক্র আপনাকে বলতে পারে আপনি যদি তাদের একাউন্টে 10000 টাকা প্রেরণ করেন; তাহলে কিছুক্ষণ পরে তারা আপনাকে দ্বিগুণ টাকা বাড়িয়ে দিবে।

এখানে একটা কমন সেন্স এর ব্যাপারে আলোচনা করা যাকঃ আপনি যদি আমাকে না চিনেন তাহলে আপনি কি কখনো আমার অফার এরমধ্যে কান দিবেন? আমি যদি আপনাকে এখন বলি যে আপনি আমাকে 50 টাকা দেন আমি আপনাকে 100 টাকা দেব আপনি কথাটা শুনবেন?

আপনি কিছু ভাবুন আর না ভাবুন; আপনার মন থেকে অচিরে একটি প্রশ্ন বের হয়ে আসবে যাকে আমি চিনি না তার সাথে কেন এত টাকা লেনদেন করব? এই টাকা যে আমি পাব তার গ্যারান্টি কে দেবে?

তাহলে আপনি কেন বিকাশ প্রতারক চক্রের ফাঁদে পা দিয়ে আপনাকে এতগুলো টাকা ধূলিসাৎ করবেন? এখানে প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষভাবে আপনি দোষী।

প্রতারক চক্র মূলত উপরে উল্লেখিত উপায়ে আপনার বিকাশ একাউন্ট হ্যাক করে নিতে পারে। আর তাই আপনি এই সমস্ত অফার কিংবা বিষয়াদি থেকে সব সময় শতভাগ দূরত্বে থাকবেন।

বিকাশ পিন হ্যাক কিভাবে হয়?

বিকাশ পিন হ্যাক মূলত আপনার সাথে প্রতারক চক্র বিভিন্ন রকমের হিসাব সমীকরণ কষে তারপরে হ্যাক করে নিতে পারে। এটাকে হেপাটাইটিস বললেও ভুল হবেনা।

বিকাশ পিন হ্যাক করার ক্ষেত্রে তারা হয়তো আপনাকে বিভিন্ন রকমের যোগ বিয়োগের হিসাব সমীকরণ দিতে পারে। বলতে পারে আপনার জন্মদিনে তারিখ এর এত যোগ করলে কত হয়? বা আপনার ছেলে সন্তানের এই পরিমাণ সাথে যোগ করলে কত হয়?

আপনি যদি প্রতারক চক্রের এই সমস্ত হিসাব সমীকরণের একমত পোষণ করেন এবং তাদেরকে আপনার যে কোন ইনফরমেশন দিয়ে দেন; তাহলে তারা আপনার বিকাশ পিন Hack করতে সম্মত হবে।

তাই অবশ্যই যে কেউ আপনার সাথে যদি এরকম কোন খেলা খেলে তাহলে আপনি এই সমস্ত বিষয়বস্তু থেকে দূরে থাকবেন; এবং কখনোই আপনি এতে জড়িয়ে যাবেন না। (তবে পারলে তাদেরকে খেলে দিবেন😉)

বিকাশ একাউন্ট হ্যাক হলে করণীয়

যদি আপনার কোন ভুলের কারণে আপনার বিকাশ একাউন্ট হ্যাক হয়ে যায়; তাহলে নিশ্চয়ই আপনি তখন ওই বিকাশ একাউন্ট পুনরায় রিকভার করার চিন্তাভাবনা করবেন।

অনেক সময় দেখা যায় যে কোন প্রতারক চক্রের ফাঁদে পরে আপনি আপনার বিকাশ একাউন্ট এর সমস্ত টাকা হারাতে পারেন। পরিণতিতে আপনার হতাশা ছাড়া আর কিছুই থাকবে না।

তবে আপনি যদি কিছু স্টেপ অনুসরণ করেন তাহলে খুব সহজেই আপনার বিকাশ একাউন্ট থেকে হারিয়ে যাওয়া সমস্ত টাকাগুলো আবার ফেরত আনতে পারবেন। এবং আপনার বিকাশ একাউন্ট রিকভার করতে পারবেন।

  • প্রথমে বিকাশ হেল্পলাইন নাম্বারে (16247) ফোন দিন। ফোন দেয়ার কাজটি মূলত আপনাকে তাৎক্ষণিক করতে হবে; যখন আপনি এই অনুধাবন করবেন যে আপনার বিকাশ একাউন্ট হ্যাক হয়ে গেছে।
  • যখনই আপনি হ্যাকিংয়ের সম্মুখীন হবেন তখন তাদের হেল্পলাইন নাম্বারে কল দেয়ার পরে তাদেরকে যাবতীয় ডিটেইলস যত তাড়াতাড়ি সম্ভব বলুন।
  • একটি বিষয় মনে রাখবেন আপনি যত তাড়াতাড়ি আপনার সমস্যার কথা গুলো তাদের সাথে এক্সপ্লেইন করতে পারবেন; আপনি ঠিক তত তাড়াতাড়ি আপনার একাউন্ট রিকভার করতে পারবেন।
  • এক্ষেত্রে একটি বিষয় ক্লিয়ার করা যাক। আপনি যদি আপনার বিকাশ একাউন্ট থেকে প্রতারক এর মাধ্যমে টাকা হারিয়ে ফেলেন; তাহলে আপনি এটি 24/48 ঘণ্টার মধ্যে ফেরত পেতে পারেন।

এক্ষেত্রে আপনাকে প্রতারক চক্রের যে বিকাশ নাম্বার রয়েছে যাতে আপনি টাকা প্রেরণ করেছেন সেই নাম্বারটি দিতে হবে। এবং আপনার বিকাশ একাউন্টের ডিটেইলস সম্পর্কে তাদের জানাতে হবে।

আপনি যদি স্বল্প সময়ে বিকাশ হেলপ্লাইন এর সহযোগিতা নিয়ে নেন; তাহলে আপনি খুব সহজেই কয়েক ঘন্টার মধ্যে আপনার বিকাশ একাউন্ট রিকভার করতে পারবেন এবং আপনার টাকাগুলো ফেরত আনতে পারবেন।

আর এভাবেই মূলত আপনি খুব সহজেই আপনার বিকাশ একাউন্ট হ্যাক হলে তাৎক্ষণিক সময়ের মধ্যে একাউন্ট আবার রিকভার করতে পারবেন।

বিকাশ একাউন্ট হ্যাক হলে করণীয় সম্পর্কে আমি উপরে আলোচনা করেছি; আশা করি এই সম্পর্কে আপনি এবার অবগত হয়ে গেছেন এবং জেনে নিতে পেরেছেন।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

13 − thirteen =

Scroll to Top
Share via
Copy link
Powered by Social Snap