বাংলাদেশের সবচেয়ে কম দামি মোবাইল

আপনার বাজেট যদি খুব বেশি পরিমাণে না থাকে, তাহলে নিশ্চয়ই আপনি বাংলাদেশের সবচেয়ে কম দামি মোবাইল এর অনুসন্ধান করে থাকবেন।

আপনি যদি বাংলাদেশ থেকেই ক্রয় করার জন্য সবচেয়ে কম দামি বাংলাদেশি মোবাইল ফোন ক্রয় করে নিতে চান, তাহলে এই আর্টিকেল থেকে সেগুলো দেখে নিতে পারেন।

বাংলাদেশের সবচেয়ে কম দামি মোবাইল প্রাইস কেমন হবে?

উন্নত আপনি যদি বাংলাদেশ থেকে কম দামের মোবাইল ক্রয় করার ইচ্ছা পোষণ করেন তাহলে যে প্রাইস রেঞ্জের মধ্যে সেই মোবাইলগুলো ক্রয় করতে পারবেন, সেগুলো হলো – ৪,০০০ টাকা থেকে ১০,০০০ টাকা।

মূলত আপনি খেলে ৪০০০ টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ১০,০০০ টাকার মোবাইল এই আর্টিকেল থেকে সংগ্রহ করে নিতে পারবেন।

তাহলে আর দেরি না করে এখনি জেনে নেয়া যাক সেই সমস্ত ভালো স্মার্টফোন এর নাম এবং তাদের যে ফিচারস রয়েছে সেই ফিচার সম্পর্কে।

৪০০০ টাকার মধ্যে বাংলাদেশের সবচেয়ে কম দামি মোবাইল

SYMPHONY PLAY W17

আপনি যদি কম দামি স্মার্টফোন ক্রয় করতে চান, তাহলে সিম্ফোনি ব্র্যান্ডের SYMPHONY PLAY W17 এই স্মার্টফোনটি আপনার বিবেচনায় রাখতে পারেন।

স্মার্টফোনটি সহজলভ্য হওয়া সত্ত্বেও অনেক অনন্য ফিচারস রয়েছে, যা দামে সস্তা হওয়ার ফলে আপনার কাজে লাগবে।

বাংলাদেশের সবচেয়ে কম দামি মোবাইল

আপনি যদি দিয়ে ৪০০০ টাকার মধ্যে স্মার্টফোন ক্রয় করে নিতে চান, তাহলে এই স্মার্টফোনটি ক্রয় করে নিতে পারেন।

SYMPHONY PLAY W17  যে সমস্ত ফিচার্স রয়েছে সেগুলোর মধ্যে থেকে উল্লেখযোগ্য কিছু ফিচারস নিচে তুলে ধরা হলো।

  • স্মার্টফোনের নামঃ SYMPHONY PLAY W17
  • র্যামঃ ৫১২ এমবি।
  • ডিভাইস স্টোরেজঃ ৪ জিবি।
  • ব্যাটারি ক্যাপাসিটিঃ লিথিয়াম-আয়ন ১৩৫০ mAh
  • ডিসপ্লেঃ ৩.৫ ইঞ্চি, রেজুলেসন (৩২০*৪৮০)
  • প্রসেসরঃ ১.০গিগাহার্জ ডুয়ালকোর
  • গ্রাফিক্সঃ মালি-৪০০
  • ক্যামেরা ও ব্যাটারিঃ ১.৩+ভিজিএ, ১৩০০
  • এমএইচ ব্যাটারি।

দামঃ ৪২৯৯টাকা

এই স্মার্টফোনটি খুবই পুরাতন হওয়ার কারণে মার্কেটে ফোন পেতে দুর্ভোগ পোহাতে হবে। তবে তারপরও আপনার কপাল ভালো থাকলে আপনি স্মার্টফোনটি মার্কেটে পেয়ে যেতে পারেন।

Walton Primo E12

সবচেয়ে কম দামের স্মার্টফোনের মধ্যে যে স্মার্টফোনটি আপনি বেছে নিতে পারেন, সেই স্মার্টফোনের নাম হল Walton Primo E12.

Walton Primo E12

এটি হলো ওয়ালটন ব্র্যান্ডের একটি চিপ প্রাইস রেন্জের স্মার্টফোন। তাহলে আর দেরি না করে এখনই এই স্মার্টফোনের ফিচারস সম্পর্কে জেনে নেয়া যাক।

  • স্মার্টফোনের নামঃ Walton Primo E12.
  • র্যামঃ ১ জিবি
  • ডিভাইস স্টোরেজঃ ৮ জিবি।
  • নেটওয়ার্ক ক্যাপাচিটিঃ ২,৩,৪ জি
  • মোবাইল ফোনের ভেরিয়েন্ট বা কালারঃ হালকা নীল, রাস্পবেরি লাল, কালো।
  • ওজনঃ  128 গ্রাম
  • অপারেটিং সিস্টেমঃ  Android 10 (গো সংস্করণ)
  • ব্যাটারি ক্যাপাসিটিঃ লিথিয়াম-আয়ন 2000 mAh

মোবাইল ফোনের দাম হলঃ  ৪,৯৯০ টাকা (অফিশিয়াল)

৫০০০ টাকার মধ্যে মোবাইল

আপনি যদি ৫০০০ টাকার ভিতরের দামের মধ্যে স্মার্টফোন ক্রয় করতে চান, তাহলে এই স্মার্টফোনটি ক্রয় করে নিতে পারেন। উপরে যে দাম দেওয়া হয়েছে সেটি মূলত অফিশিয়াল প্রাইস।

itel A23 Pro

এছাড়াও ৫,০০০ টাকা দামের মধ্যে আরেকটি অসাধারণ স্মার্টফোনের নাম হল itel A23 Pro. এই স্মার্টফোন মূলত আইটেল কোম্পানি তৈরি করেছে।

বাংলাদেশের সবচেয়ে কম দামি মোবাইল

কম দামের মধ্যে এই স্মার্টফোনটি ক্রয় করার বদৌলতে আপনি যে সমস্ত ফিচারস উপভোগ করতে পারবেন, সেগুলোর মধ্যে থেকে উল্লেখযোগ্য কিছু ফিচারস নিচে মেনশন করা হলো।

  • স্মার্টফোনের নামঃ Symphony i32.
  • র্যামঃ ১ জিবি।
  • ডিভাইস স্টোরেজঃ ৮ জিবি।
  • নেটওয়ার্ক ক্যাপাচিটিঃ ২,৩ জি
  • মোবাইল ফোনের ভেরিয়েন্ট বা কালারঃ  নীল, সবুজ।
  • অপারেটিং সিস্টেমঃ  Android 10 (গো সংস্করণ)
  • ব্যাটারি ক্যাপাসিটিঃ লিথিয়াম-আয়ন ২৪০০ mAh

মোবাইল ফোন এর অফিসিয়াল প্রাইসঃ ৫,২৯০ টাকা।

এই প্রাইস রেঞ্জের মধ্যে আপনি এই মোবাইল ফোনটি যেকোন রকমের মোবাইল ফোনের শপ থেকে ক্রয় করতে পারবেন।

Symphony i32

এছাড়াও সিম্ফোনি ব্র্যান্ডের কম দামের একটি অসাধারণ মোবাইল ফোন হলো Symphony i32. এ মোবাইল ফোনটি আপনি ৬০০০ টাকার ভিতরে ক্রয় করতে পারবেন।

বাংলাদেশের সবচেয়ে কম দামি মোবাইল

এই মোবাইলফোন আপনি যদি ক্রয় করেন, তাহলে এই মোবাইল ফোনের মধ্যে যে সমস্ত ফিচারস আপনাকে আকৃষ্ট করবে সেগুলোর মধ্যে থেকে উল্লেখযোগ্য কিছু ফিচারস নিচে তুলে ধরা হলো।

  • স্মার্টফোনের নামঃ Symphony i32.
  • র্যামঃ ১ জিবি।
  • ডিভাইস স্টোরেজঃ ১৬ জিবি।
  • নেটওয়ার্ক ক্যাপাচিটিঃ ২,৩ জি
  • মোবাইল ফোনের ভেরিয়েন্ট বা কালারঃ হালকা নীল, রাস্পবেরি লাল, কালো।
  • ওজনঃ  ১৬২ গ্রাম
  • অপারেটিং সিস্টেমঃ  Android 10 (গো সংস্করণ)
  • ব্যাটারি ক্যাপাসিটিঃ লিথিয়াম-আয়ন ৪০০০ mAh

মূলত আপনি যদি এই সমস্ত ফিচারস এর সহিত এই মোবাইলটি ক্রয় করেন, তাহলে আপনার পকেট থেকে যত টাকা খরচ হবে তার পরিমাণ হলঃ  ৫,৯৯৯ টাকা।

এই প্রাইস হল এই মোবাইল ফোনের অফিশিয়াল প্রাইস।

৭,০০০ টাকার উপরে মোবাইল

Nokia C2 2nd Edition

৮,০০০ টাকা প্রাইস রেঞ্জের মধ্যে আপনি যদি নকিয়া মোবাইল ক্রয় করতে চান, তাহলে যে মোবাইলটি আপনার পছন্দের লিস্টে থাকতে পারে সেটি হল Nokia C2 2nd Edition.

যেহেতু এই মোবাইলটি হল নকিয়া ব্র্যান্ডের একটি মোবাইল ফোন। সে জন্য আপনি এই ব্র্যান্ডের মোবাইল ফোন সম্পর্কে সেরকম কোনো সংকোচ করবেন না হয়তো।

বাংলাদেশের সবচেয়ে কম দামি মোবাইল

তারপরেও আপনি যদি এই মোবাইল ফোনের গুরুত্বপূর্ণ কিছু ফিচার সম্পর্কে অবগত হতে চান, তাহলে সেটি সম্পর্কে নিচে থেকে জেনে নিতে পারেন।

  • স্মার্টফোনের নামঃ Nokia C2 2nd Edition.
  • র্যামঃ ১/২জিবি।
  • ডিভাইস স্টোরেজঃ ৩২ জিবি।
  • নেটওয়ার্ক ক্যাপাচিটিঃ ২,৩,৪জি
  • মোবাইল ফোনের ভেরিয়েন্ট বা কালারঃ গাঢ় নীল, উষ্ণ ধূসর।
  • ওজনঃ  ১৮০ গ্রাম
  • অপারেটিং সিস্টেমঃ  Android 11 (গো সংস্করণ)
  • ব্যাটারি ক্যাপাসিটিঃ লিথিয়াম-আয়ন ২৪০০ mAh

এই সমস্ত ফিচারস সহিত আপনি যদি এই নোকিয়া ব্র্যান্ডের মোবাইল ফোনটি করে নিতে চান, তাহলে অফিশিয়ালি মোবাইল ফোনের দাম হবে- ৮,৪৯৯ টাকা।

আপনি দাম কষাকষি করে এই মোবাইল ফোনটি ৮০০০ টাকায় ক্রয় করে নিতে পারবেন।

Tecno Pop 5 LTE

এছাড়াও ৯,০০০ টাকার মধ্যে একটি রিজনাবল স্মার্টফোন ক্রয় করে নেয়ার ক্ষেত্রে যে স্মার্টফোনটি আপনার পছন্দের লিস্টে থাকবে সেটি হল Tecno Pop 5 LTE.

Tecno Pop 5 LTE দামের দিক থেকে কম হলেও এই স্মার্টফোনের অবিশ্বাস্য অনেক রকমের ফিচারস রয়েছে, যা আপনার মন জয় করতে যথেষ্ট।

  • স্মার্টফোনের নামঃ Tecno Pop 5 LTE
  • র্যামঃ ২/৩জিবি।
  • ডিভাইস স্টোরেজঃ ৩২ জিবি।
  • নেটওয়ার্ক ক্যাপাচিটিঃ ২,৩,৪জি
  • মোবাইল ফোনের ভেরিয়েন্ট বা কালারঃ আইস ব্লু,
  • ডিপসি লাস্টার, ফিরোজা সায়ান ।
  • ওজনঃ  ১৮০ গ্রাম
  • অপারেটিং সিস্টেমঃ  Android 11 (HiOS 7.6)
  • ব্যাটারি ক্যাপাসিটিঃ লিথিয়াম-আয়ন ৫০০০ mAh

এই সমস্ত অবিশ্বাস্য ফিচারস এর সমন্বয়ে আপনি যদি মোবাইল ফোনটি ক্রয় করেন, তাহলে এই মোবাইল ফোনের অফিশিয়াল দাম হবে- ৳ ৯,১৯০-  ২/৩২ জিবি /
৳ ১০,৯৯০ –  ৩/৩২ জিবি।

বাংলাদেশের সবচেয়ে কম দামি মোবাইল  এরমধ্যে উল্লেখযোগ্য কয়েকটি মোবাইল ফোনের ফিচারস এবং অন্যান্য বিষয়াদি উপরে বিস্তারিতভাবে আলোচনা করা হলো।

মূলত আপনি যদি এই প্রাইস রেঞ্জের মধ্যে মোবাইল ক্রয় করেন, তাহলে এই সমস্ত মোবাইল ফোন ছাড়াও আরো বিভিন্ন রকমের মোবাইল ফোন পাবেন।

যদিও অন্যান্য মোবাইলের চেয়ে এই মোবাইল ফোন গুলো ব্যবহারে হয়তোবা আপনি কিছুটা হলেও সাচ্ছন্দ বোধ করতে পারবেন।

শেষ কথাঃ আপনি হয়তো এই সম্পর্কে জানেন যে বর্তমান সময়ের স্মার্টফোনগুলো খুবই সহজলভ্য।

তবে আপনি যদি ১০ হাজার টাকার মধ্যে মোবাইল ফোন ক্রয় করেন তাহলে সেগুলো হয়তো আপনার জন্য খুব ভালো একটা ফিট নাও হতে পারে।

আপনি যদি এমন একটি স্মার্টফোন ক্রয় করতে চান যে স্মার্টফোন ব্যবহারে আপনি ভালো রকমের অভিজ্ঞতা অর্জন করতে পারবেন, তাহলে স্মার্টফোন ক্রয় করার ক্ষেত্রে আপনার প্রাইস রেঞ্জ ২০,০০০ টাকার উপরে রাখতে পারেন।

এতে করে আপনি যে স্মার্টফোনটি ক্রয় করবেন সেই স্মার্টফোনটি বর্তমান সময়ের সাথে উপযোগী হবে। এবং অসাধারন ফিচারস এর সহায়তায় আপনি স্মার্টফোন ব্যবহারে অনন্য অভিজ্ঞতা উপভোগ করতে পারবেন।

১০ হাজার টাকার মধ্যে ভালো মোবাইল ফোনের মধ্যে যেগুলো আপনার পছন্দসই হতে পারে সেগুলো সম্পর্কে উপরে আলোচনা করা হলো।

আশা করি, বাংলাদেশের সবচেয়ে কম দামি মোবাইল ফোন লিস্ট সম্পর্কে জেনে নিতে পেরেছেন।

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Scroll to Top
Share via
Copy link