মোবাইল ট্র্যাকিং কি? মোবাইল ট্র্যাকিং থেকে বাঁচার উপায়

আমাদের মধ্যে এরকম অনেকেই রয়েছেন যারা কিনা মোবাইল ট্র্যাকিং থেকে বাঁচার উপায় সম্পর্কে জেনে নিতে চান।

অর্থাৎ কোন একটি কারণে আপনার যদি এ রকমটা মনে হয় থাকে যে, আপনাকে কেউ ট্র্যাক করতে চায় কিংবা ট্রাকিং করার চেষ্টা করছে তাহলে আপনি পূর্বে থেকে সতর্ক অবস্থানে থাকতে পারেন।

মোবাইল ট্র্যাকিং থেকে বাঁচার জন্য যে কার্যকরী উপায় রয়েছে, সে সমস্ত কার্যকরী উপায় সম্পর্কে এই আর্টিকেলে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে।

মোবাইল ট্রাকিং আসলে কি?

মোবাইল ট্রাকিং হলো এমন একটি পদ্ধতি যার মাধ্যমে আপনার মোবাইল ফোনের বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে জেনে নেয়া যায়।

এছাড়াও এই পদ্ধতি অনুসরণ করে যে কেউ আপনার ফোনের পুরোপুরি এক্সেস নিতে পারে।

মূলত, আপনি আপনার মোবাইল ফোনে যে রকম কার্যক্রম সম্পন্ন করেন না কেন কিংবা আপনার মোবাইল ফোন নিয়ে আপনি যে অবস্থানে থাকে না কেন, সেই অবস্থান খুঁজে বের করার জন্য মোবাইল ট্রাকিং ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

মোবাইল ট্রাকিং করার মাধ্যমে আপনার বর্তমান অবস্থান এবং মোবাইল ফোনের ভিতরে এর যাবতীয় কার্যক্রম হ্যান্ডেল করা যেতে পারে।

এছাড়াও যে ব্যক্তি মোবাইল ট্রাকিং করবে সেই ব্যক্তি আপনার মোবাইল স্পর্শ করা ছাড়াই আপনার মোবাইলের সমস্ত এক্সেস নিতে পারবে এবং এটা দিয়ে ব্যক্তিগত স্বার্থ সিদ্ধি করতে পারবে।

মোবাইল ট্রাকিং থেকে বাঁচা কি সম্ভব?

মোবাইল ট্রাকিং থেকে বাঁচা সম্ভব কিনা এটা সম্পূর্ণ নির্ভর করবে আপনার উপরে। অর্থাৎ আপনি যদি কার্যকরী পদক্ষেপ অনুসরণ করেন, তাহলে মোবাইল ট্র্যাকিং থেকে বাঁচা অবশ্যই সম্ভব।

এক্ষেত্রে আপনাকে সতর্ক অবস্থানে থাকতে হবে এবং মোবাইল ফোন এমন ভাবে ব্যবহার করতে হবে, যাতে করে যে কেউ আপনার ফোনটা ট্রাক করতে না পারে।

তাহলে আর দেরি না করে এখনি এক নজরে জেনে নেয়া যাক, কিভাবে আপনি আপনার ফোনকে প্রটেক্ট করবেন। যাতে করে কেউ আপনার ফোন ট্র্যাকিং করতে না পারে।

অযাচিত সফটওয়্যার

আপনি যদি আপনার ফোনে অযাচিত সফটওয়্যার ডাউনলোড করে রাখেন কিংবা যে কোনো রকমের প্লাটফর্ম থেকে সফটওয়্যার ডাউনলোড করে আপনার ফোনে ইন্সটল করে দেন, তাহলে সেটি আপনার ফোনের সিকিউরিটি ব্যাঘাত ঘটাতো পারে।

এছাড়াও যেকোন রকমের সফটওয়্যার ডাউনলোড করার মাধ্যমে আপনার ডিভাইসে বিভিন্ন রকমের ভাইরাস আক্রমন হতে পারে, এতে করে আপনার ডিভাইস সিকিউরিটি নিশ্চয়তা জনিত সমস্যার মধ্যে পড়বে।

এছাড়াও যে কেউ যদি আপনার ডিভাইসে কোন রকমের সফটওয়্যার ঢুকিয়ে দিতে পারে, তাহলে সেই সফটওয়্যার এর মাধ্যমে সে চাইলে আপনার ফোন ট্র্যাক করতে পারে।

সেজন্য সার্বক্ষণিক এই বিষয়টি লক্ষ্য রাখবেন যে আপনার ডিভাইসে কোন রকমের অযাচিত সফটওয়্যার রয়েছে কিনা।

অথবা যেটি আপনি পছন্দ করেন না, কিংবা যেটি আপনি পূর্বে দেখেননি।

আপনার ডিভাইসে যে হিডেন অ্যাপস রয়েছে, সেখানে ঘেঁটেঘুঁটে দেখবেন।
কারণ সে সমস্ত হিডেন অ্যাপস এর মধ্যেও যে কেউ একটি সফটওয়্যার ঢুকিয়ে হিডেন করে দিতে পারে।

এবং সেই হিডেন করা সফটওয়্যার এর বদৌলতে আপনার ডিভাইস ট্র্যাক করা আরো বেশী সহজতর হয়ে পড়বে।

কাজেই, ফোন ট্র্যাকিং থেকে বাঁচার জন্য আপনাকে সর্বপ্রথম আপনার ডিভাইসের সফটওয়্যার গুলোর দিকে নজর দিতে হবে।

ওয়েবসাইট ট্রাকিং

আপনি হয়তো নিত্যনতুন কাজ সম্পন্ন করার জন্য এরকম অনেক ওয়েবসাইটের মধ্যে প্রবেশ করতে পারেন। যে সমস্ত ওয়েবসাইট আপনার কাছ থেকে বিভিন্ন রকমের অ্যাক্সেস কালেক্ট করতে চায়।

আর হয়তো আপনার ডিভাইসের কলের এক্সেস কিংবা আরো যে কোনো রকমের স্টোরেজে অ্যাক্সেস সম্পর্কে একমত পোষণ করতে বলবে।

আর যখনই আপনিও সমস্ত প্লাটফর্মে ঢোকার পরে তাদেরকে আপনার ডিভাইসের অ্যাক্সেস দিয়ে দিবেন, তখন তারা কি করতে পারে সেটা আপনার মাথার মধ্যে এতক্ষণে গেথে যাওয়ার কথা।

এ জন্য যে কোনো রকমের অযাচিত এবং স্প্যাম ওয়েবসাইট থেকে বিরত থাকবেন।

অযাচিত লিংক

যে কেউ আপনাকে এসএমএস এর মাধ্যমে কিংবা যে কোনো রকমের সোসিয়াল গণমাধ্যমে মেসেজ করার মাধ্যমে কোনো রকমের লিংক সেন্ড করে দিতে পারে।

এসমস্ত লিংকে আকর্ষণীয় টাইটেল থাকবে এবং এই টাইটেল দেখে আপনি হয়তো লিংকের মধ্যে ক্লিক করার ইচ্ছা পোষণ করবেন।

এবং যখন আপনি এই লিংক এর মধ্যে ক্লিক করবেন, তখন আপনার গুরুত্বপূর্ণ ইনফরমেশন দিয়ে সেখানে লগইন করার কথা বলতে পারে।

যখনই আপনি লগইন করে নিবেন, তখন তারা আপনার ইনফরমেশনগুলো সহজেই কালেক্ট করে নিতে পারবেন।

তারাও বর্তমান সময়ে এরকম অনেক ফিশিং লিংক রয়েছে, যে সমস্ত লিংকে ক্লিক করার মাধ্যমে আপনার ডিভাইসের সমস্ত ইনফরমেশন ঐ সমস্ত ব্যক্তির হাতে চলে যেতে পারে, যারা আপনাকে লিঙ্ক সেন্ড করেছে।

সেজন্য যে কেউ যে কোনো রকমের ইন্টারেস্টিং টাইটেল যুক্ত লিংক প্রেরন করলে, সে সমস্ত টাইটেল যুক্ত লিংকে ক্লিক না করাই শ্রেয়।

লোকেশন ওপেন করা

আপনি যদি আপনার ডিভাইসের লোকেশন সার্বক্ষণিক ওপেন করে রাখেন, তাহলে আপনার ডিভাইস ট্র্যাক করার সম্ভাবনা থেকে যায়।

লোকেশন অন কিংবা অফ করে রাখার অনেকগুলো প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। যেমন, আপনি যদি লোকেশন অন করে রাখেন, তাহলে আপনার ডিভাইস চুরি হয়ে গেলে সেই লোকেশন এর মাধ্যমে ট্র্যাক করতে পারবেন।

আবারো আপনি যদি সার্বক্ষণিক আপনার মোবাইল ফোনের লোকেশন অন করে রাখেন, তাহলে আপনার মোবাইল ফোনের ট্রেকিং করা আরো বেশী সহজতী হয়ে যাবে।

Also Read: আইফোন হারিয়ে যাওয়ার পূর্বে এবং পরে

লোকেশন অন কিংবা অফ করা সেটির সর্বাপেক্ষা নির্ভর করবে আপনার উপরে।

তবে লোকেশন অন করে রাখলে, যে ভাবে আপনার ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে, ঠিক সেইভাবে আপনার লাভ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

সেজন্য লোকেশন অন করে নেয়ার পরে আপনার কার্যক্রম সম্পন্ন করেন নিয়ে নিলে, সেটি আবার অফ করে দেয়া শ্রেয়।

এতে করে যে কোন রকমে বিরূপ প্রভাব থেকে বাঁচতে পারেন।

জিপিএস অন করা

ডিভাইস সহজে ট্র্যাক করার জন্য একটি অন্যতম উপায় হল জিপিএস। জিপিএস এর মাধ্যমে আপনি খুব সহজেই যে কোন জায়গা ট্র্যাক করতে পারেন।

এবার আপনি যদি আপনার জিপিএস অন করে রাখেন, তাহলে ট্রাক হওয়ার সম্ভাবনা আরও বেশি বেড়ে যায়।

সেজন্য জিপিএস রিলেটেড কার্যক্রম সম্পন্ন করার পরে অবশ্য জিপিএস বন্ধ করে নিবেন।

অন্যথায়, আপনার ডিভাইস ট্রাকিং হওয়ার সম্ভাবনা বহুতর বেড়ে যায়।

একনজরে মোবাইল ট্র্যাকিং থেকে বাঁচার উপায়

আপনি যদি মোবাইল ট্র্যাকিং থেকে বেঁচে থাকতে চান, তাহলে নিম্নলিখিত কয়েকটি কাজ করলেই হয়ে যাবে।

ট্র্যাকিং থেকে বাচার জন্য আপনাকে সর্বপ্রথম অযাচিত সফটওয়্যার ডাউনলোড করা থেকে বিরত থাকতে হবে। আপনার মোবাইল ফোনের লোকেশন বেশি প্রয়োজনীয় না হলে বন্ধ রাখতে হবে।

আপনার ফোনের জিপিএস বন্ধ রাখতে হবে এবং অপ্রয়োজনীয় কোন লিংকে ক্লিক করা থেকে বিরত থাকতে হবে।

উল্লেখিত কয়েকটি বিষয়ে আপনি যদি আমলে রাখতে পারেন, তাহলে মোবাইল থেকে থেকে বেঁচে ফেরা খুব বেশি দুঃসাধ্য কিছু নয়।

কেইস স্টাডি

উপরে উল্লেখিত কার্যক্রম সম্পন্ন করার মাধ্যমে আপনি হয়তো ছোটখাটো মোবাইল ট্র্যাকার এর কাছ থেকে নিজের মোবাইল ফোন ট্রাকিং এর হাত থেকে বাঁচাতে পারবেন।

তবে এখানে আরেকটি তিতা সত্য রয়েছে সেটি হল, কেউ যদি আপনার মোবাইল ফোন ট্র্যাক করতে চায়, তাহলে সে চাইলে বিভিন্ন রকমের উপায় করার মাধ্যমে আপনার মোবাইল ফোন ট্র্যাক করতে পারে।

অর্থাৎ যারা মোবাইল ট্রাকিং করে তারা এরকম কিছু পদ্ধতি অনুসরণ করতে পারে, যেটা আপনার আমার ধরাছোঁয়ার বাইরে।

যারা ছোটখাটো রকমের মোবাইল ট্র্যাকার রয়েছে, তারা উপরে উল্লেখিত কার্যক্রম সম্পন্ন করার মাধ্যমে আপনার মোবাইল ফোন ট্র্যাক করে থাকে।

উপরে উল্লেখিত সিকিউরিটি নিশ্চয়তা যদি দিতে পারেন তাহলে আপনার ফোন ট্রেকিং রিলেটেড সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে পারে।

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Scroll to Top
Share via
Copy link