সিম রেজিস্ট্রেশন চেক এবং রেজিস্ট্রেশন বাতিল এর নিয়ম

সিম রেজিস্ট্রেশন চেক এবং সিম রেজিস্ট্রেশন কার নামে করা সেই সম্পর্কে জানার ইচ্ছা আমাদের অনেকের মনের মধ্যে থাকে।

সিম কার নামে রেজিস্ট্রেশন করা এটি দেখার অনেকগুলো কারণ বিদ্যমান রয়েছে। যার মধ্যে থেকে একটি হলো আপনার এনআইডি কার্ড দিয়ে কয়টি সিম রেজিস্ট্রেশন করা সেটা দেখার জন্য।

এছাড়াও এই সংক্রান্ত জটিলতার মধ্যে পতিত হওয়ার পরে এই সমস্যা থেকে সমাধানের জন্য অনেক ক্ষেত্রে সিম কার নামে রেজিস্ট্রেশন করা সিম রেজিস্ট্রেশন সম্পর্কে জানা লাগে।

আজকের এই আর্টিকেলের মূলত বিস্তারিত আলোচনা করা হবে সিম রেজিস্ট্রেশন সম্পর্কে। অর্থাৎ কার নামে সিম রেজিস্ট্রেশন করা এবং সিম রেজিস্ট্রেশন হয়েছে কিনা সে সম্পর্কে।

একটি আইডি কার্ড দিয়ে কয়টি সিম রেজিস্ট্রেশন করা যায়?

আমাদের মধ্যে অনেকেরই এই রিলেটেড প্রশ্ন থেকে থাকে, যে একটি আইডি কার্ড দিয়ে কয়টি সিম রেজিস্ট্রেশন করা যায়?

যে কোন অপারেটরের সিম আপনি যদি আপনার আইডি কার্ড দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করতে চান; তাহলে এ সম্পর্কে সঠিক জবাব হলো একটি আইডি কার্ড দিয়ে সর্বোচ্চ ১৫ টি সিম রেজিস্ট্রেশন করা যায়।

এবার আপনি যদি ১৫ টির বেশী সিম রেজিস্ট্রেশন করে নেন; তাহলে আপনার সিম রেজিস্ট্রেশন বাতিল হয়ে যাবে এবং ব্যবহৃত সিমটি বন্ধ হয়ে যাবে।

যে কোন সিমের রেজিস্ট্রেশন চেক

আপনি চাইলে একটি সিক্রেট এসএমএস কোড এর মাধ্যমে আপনার কাছে যতগুলো সিম রয়েছে সমস্ত সিম কোন আইডি দিয়ে খোলা সেটি দেখতে পারবেন।

এই কাজটি করার জন্য যেকোনো সিম থেকে প্রথমে ডায়াল করুন *16001#; এবং তারপরে আপনি যে এনআইডি কার্ড সন্দেহ করছেন সে এনআইডি কার্ডের লাস্ট চারটি ডিজিট মেনশন করুন।

তারপরে ফিরতি এসএমএস এর মাধ্যমে আপনি এই সম্পর্কে জানতে পারবেন।

এই বিষয়টিকে আপনি যদি এককথায় জেনে নিতে চান; তাহলে নিম্নলিখিত ইনফরমেশন এর দিকে নজর দিন।

  1. যেকোনো সিম থেকে ডায়াল *16001#
  2. তারপরে আপনার এনআইডি কার্ডের শেষের দিকের ৪ ডিজিট নাম্বার।
  3. ফিরতি এসএমএস এর মাধ্যমে ফলাফল জানা।

মূলত উপরে উল্লেখিত সহজ দুইটি প্রসেস ফলো করার মাধ্যমে আপনার এনআইডি কার্ড কার নামে রেজিস্ট্রেশন করা হয়েছে সেই সম্পর্কে জেনে নিতে পারেন।

জিপি সিম রেজিস্ট্রেশন চেক

এছাড়াও আপনি যদি আপনার স্পেসিফিক সিম দ্বয়ের ক্ষেত্রে রেজিস্ট্রেশন চেক করে নিতে চান; তাহলে অন্য প্রসেস ফলো করতে পারেন।

কাজটি যথারীতি করার জন্য জিপি সিম রেজিস্ট্রেশন চেক করতে হবে। জিপি সিম রেজিস্ট্রেশন চেক করার প্রসেস নিচে দেয়া হল।

মেসেজ অপশনে চলে যান তারপরে টাইপ করুন Info এবং মেসেজটি পাঠিয়ে দিন 4949 নাম্বারে। তাহলে ফিরতি এসএমএস এর মাধ্যমে ডিটেইলস জানতে পারবেন।

GP Sim Registration Check
type “info” send to 4949

রবি সিম রেজিস্ট্রেশন চেক

ঠিক একই রকমভাবে আপনি যদি রবি সিমের রেজিস্ট্রেশন চেক করতে চান; তাহলে আরেকটি প্রসেস ফলো করতে পারেন।

এই কাজটি করার জন্য রবি সিম থেকে ডায়াল করুন *1600*3# ; এই ইউএসএসডি কোড ডায়াল করলে আপনার সিম রেজিস্ট্রেশন সম্পর্কে জানতে পারবেন।

এছাড়াও আপনার সিম রেজিস্ট্রেশন সফল হয়েছে কিনা সে সম্পর্কে জানার জন্য একটি সিক্রেট ইউএসএসডি কোড রয়েছে।

সিম রেজিস্ট্রেশন স্ট্যাটাস চেক করার জন্য ইউএসএসডি কোড হল *1600*1#

সিম রেজিস্ট্রেশন চেক
সিম রেজিস্ট্রেশন চেক

এয়ারটেল সিম রেজিস্ট্রেশন চেক

এয়ারটেল সিমে রেজিস্ট্রেশন স্ট্যাটাস চেক করার জন্য নিম্নলিখিত ইউএসএসডি কোড ডায়াল করুন।

*121*4444#

বাংলালিংক রেজিস্ট্রেশন চেক

বাংলালিংক সিমের রেজিস্ট্রেশন স্ট্যাটাস দেখার জন্য নিম্নলিখিত ইউএসএসডি কোড ডায়াল করুন।

*1600*2#

বাংলালিংক সিম রেজিস্ট্রেশন সম্পাদন সফল হয়েছে কিনা কিংবা আপনার সিম কত তারিখে রেজিস্ট্রেশন হয়েছে সেই সম্পর্কে জানার জন্য নিম্নলিখিত ইউএসএসডি কোড ব্যবহার করুন।

*1600*1#

টেলিটক সিম রেজিস্ট্রেশন চেক

ঠিক একই রকমভাবে এসএমএসের মাধ্যমে আপনি যদি টেলিটক সিমের রেজিস্ট্রেশন স্ট্যাটাস চেক করে নিতে চান তাহলে নিম্নলিখিত উপায় এসএমএস করুন।

এই কাজটি করার জন্য প্রথমে মেসেজ অপশনে চলে যান এবং তারপর টাইপ করুন Info এবং এই মেসেজটি সেন্ড করে দিন 1600 নাম্বারে।

তাহলে ফিরতি এসএমএস এর মাধ্যমে স্ট্যাটাস জানতে পারবেন।

GP Sim Registration Check
type “info” send to 1600

মূলত; উপরে বর্ণিত উপায় খুব সহজেই আপনার সিমের রেজিস্ট্রেশন স্ট্যাটাস চেক করে নেয়া সম্ভব, তাও ঘরে বসে খুব কম সময়ের মধ্যে।

সিম রেজিস্ট্রেশন বাতিল

অনেক সময় আপনি যখন সিম রেজিষ্টেশন করতে যান তখন কিছু চক্র আপনার ডকুমেন্টস গুলো সংরক্ষন করে রেখে দেয়।

আর এই কাজটি তারা সম্পাদন করার কারণে আপনার অনুমতি ছাড়া আপনার এনআইডি এবং অন্যান্য ডকুমেন্ট দিয়ে আরেকটি সিম রেজিস্ট্রেশন করতে সক্ষম হয়।

এবার আপনি যদি সিমের রেজিস্ট্রেশন স্ট্যাটাস দেখে নেয়ার পরে এ সম্পর্কে অবগত হয়ে যান যে ভুলবশত আপনারই দিয়ে অন্যান্য সিম রেজিস্ট্রেশন করা হয়েছে তাহলে এটি কিভাবে বন্ধ করবেন?

কারণ আপনি যদি সিম রেজিস্ট্রেশন বাতিল করতে সক্ষম না হন তাহলে পরবর্তী সময়ে নানা রকমের সমস্যার মধ্যে পতিত হতে পারেন।

সিম রেজিস্ট্রেশন বাতিল করার জন্য নিম্নলিখিত প্রসেস ফলো করুন।

  • গ্রামীণফোন সিম যদি রেজিস্ট্রেশন করা থাকে তাহলে আপনার আশেপাশে থাকা গ্রামীণফোন কাস্টমার প্রতিনিধির কার্যালয়ে উপস্থিত হন
  • এছাড়াও আপনি চাইলে গ্রামীনফোনের কাস্টমার কেয়ার নাম্বার এ কল করার মাধ্যমে এ সম্পর্কে অবগত করতে পারেন।
  • রেজিস্ট্রেশন বাতিল করার জন্য অবশ্যই আপনার এনআইডি কার্ডের নাম্বার এবং অন্যান্য রকমের ডকুমেন্টস সাথে নিয়ে যাবেন।
  • এবার আপনাকে কাস্টমার প্রতিনিধির সাথে সম্পর্কে বিস্তারিত আলাপ ফোন করতে হবে; আপনি অন্য যে সিমের রেজিস্ট্রেশন মালিকানাধীন রয়েছেন সেই সিমের মালিক নন।

এই সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করার পরে যখন আপনার ডকুমেন্টস এবং অন্যান্য সমস্ত বিষয়টি তারা অ্যাকসেপ্ট করে নিবে, তখন আপনি ওই সিম রেজিস্ট্রেশন বাতিল করার কথা বলুন।

তাহলে যে কোন সিমের কাস্টমার অপারেটর আপনার ওই সিমে রেজিস্ট্রেশন স্ট্যাটাস বাতিল করে দিবে এবং আপনাকে নির্বিঘ্নে পথ চলতে সহায়তা করবে।

মনে রাখবেন, আপনি যদি সিম রেজিস্ট্রেশন বাতিল করতে সক্ষম নন, তাহলে ওই সিম ব্যবহারকারীর যতগুলো অপকর্ম করবে তার সমস্ত দায়ভার আপনার উপর এসে পড়বে।

জন্ম নিবন্ধন দিয়ে সিম রেজিস্ট্রেশন সম্ভব?

জন্ম নিবন্ধন দিয়ে সিম রেজিস্ট্রেশন সম্ভব হবে কিনা এই রিলেটেড অনেক প্রশ্ন আমাদের মাথার মধ্যে প্রায়শই ঘুরপাক খায়। আসলেই কি জন্ম নিবন্ধন দিয়ে সিম রেজিস্ট্রেশন সম্ভব?

মূলত জন্ম নিবন্ধন কার্ড খুব সহজেই তৈরি করা যায়। যার কারণে জন্ম নিবন্ধন দিয়ে যদি সিম রেজিস্ট্রেশন প্রসেস চালু করা হয় তাহলে দেশে অনিয়ম আরো বেশি বেড়ে যাবে।

যার কারণে সমস্ত অনিয়ম রুদ্ধ করতে বাংলাদেশ সরকার জন্ম নিবন্ধন দিয়ে সিম রেজিস্ট্রেশন প্রসেস বন্ধ করে রেখেছে। জন্ম নিবন্ধন দিয়ে সিম রেজিস্ট্রেশন করা যাবে না।

আশাকরি সিমের রেজিস্ট্রেশন সংক্রান্ত সমস্ত ডিটেইলস সম্পর্কে এবার আপনি পরিপূর্ণ তথ্য জেনে নিতে পেরেছেন। এর নিয়ম

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

twelve − 9 =

Scroll to Top
Share via
Copy link
Powered by Social Snap