শেয়ার মার্কেট | শেয়ার বাজারের নিয়ম কানুন |

শেয়ার মার্কেট আসলে কি? শেয়ার বাজারের নিয়ম গুলো কি এর সম্পর্কে জানতে হলে আপনাকে প্রতিনিয়ত এদিক থেকে ওদিক ঘুরতে হয়।

আপনি হয়তো এখনও শেয়ার মার্কেট এর আসল সমীকরণ সম্পর্কে জানতে পারেননি, যা মোটেও কাম্য নয়। 

তবে আপনি চাইলে আজকের এই পোস্ট এর মাধ্যমে শেয়ার মার্কেট কি? এবং শেয়ার মার্কেটে নিয়মকানুনগুলো কি কি? সম্পর্কে পুরোপুরি ধারণা নিতে পারবেন।

শেয়ার মার্কেট কি?

শেয়ার মার্কেট সম্পর্কে জানতে হলে প্রথমত আপনাকে পাঁচটি বিষয়ে অবশ্যই জানতে হবে সেগুলো হলো:

▪ কোম্পানি
▪ IPO
▪ স্টক এক্সচেঞ্জ
▪ সেকেন্ডারি মার্কেট
▪ ইন্ডেক্স বা সূচক

কোম্পানিঃ

প্রথমে আপনাকে একটি কোম্পানির নাম সিলেক্ট করতে হয়। তবে এখানে এই বিষয়টি অবশ্যই লক্ষ্য রাখতে হবে, আপনি কখনোই এককভাবে কোনো কোম্পানির তৈরি করতে পারবেন না।এক্ষেত্রে আপনাকে কমপক্ষে দুইজন থেকে সর্বোচ্চ 50 জন নিয়ে একটি কোম্পানি তৈরি করতে পারেন।

এছাড়াও আপনার কোম্পানীর জন্য একটি ছাড়পত্র নিতে হবে অর্থাৎ আপনাকে এটা প্রমাণ করতে হবে যে আপনার আর অন্য কোন কোম্পানি নেই।

এটা যখন নিশ্চিত হয়ে যাবেন তখন আপনি আপনার কোম্পানির জীবন বৃত্তান্ত করতে পারবেন।

এরপর আপনার কোম্পানির কাজের ধারা বর্ণনা করতে হবে অর্থাৎ কোন কোন কাজে আপনার কোম্পানি ইনভেস্ট করবে কত পারসেন্ট ইনভেস্ট করবে সহ আরো নানা যাবতীয় বিষয়গুলো।

এরপরে আপনাকে কয়েকটি বিষয় অবশ্যই বর্ণনা করতে হয় আর সেটা হলো আপনি সর্বনিম্ন কত টাকা অব্দি ইনভেস্ট করতে পারবেন। 

এবং সর্বোচ্চ কত টাকা ইনভেস্ট করতে পারবেন যাকে বলা হয় অথরাইজড ক্যাপিটাল।

IPO:

আপনি যদি আপনার ব্যাংক থেকে 10 পার্সেন্ট টাকা উঠাতে চান এবং এটা বাজারে ছেড়ে দেন তাহলে এতে যদি কোন সাধারণ ভুক্তভোগী গ্রহণ করে তাহলে এটাকে বলা হয় IPO. 

যার মানে হলঃ Initial Public offering

তবে বিষয়টা এরকম না যে আপনি আজকেই চাইছেন আর আজকে টাকাগুলো উঠাতে পারবেন। এটি সাধারণত ছয় মাস থেকে তিন বছর অব্দি লেগে যেতে পারে।

যখন তারা এটা বলবে যে আপনি আইপিও ছাড়ার জন্য উপযুক্ত তখনই আপনি আইপিও ছাড়তে পারবেন।

স্টক এক্সচেঞ্জ:

স্টক এক্সচেঞ্জ  একদা ছিল বিভিন্ন কোম্পানির ‘স্টক’ ব্যবসার কেন্দ্র। কিন্তু বর্তমানে স্টক এক্সচেঞ্জ কম্পিউটার নির্ভর স্বয়ংক্রিয় ব্যবস্থাসম্পন্ন শেয়ার ব্যবসার একটি সহায়ক প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরিত হয়েছে। 

সেকেন্ডারি মার্কেট:

সেকেন্ডারি মার্কেট সাধারণত একটি অর্থনৈতিক অবস্থা পরিমাপের সাহায্য করে, এটি শেয়ার বাজারের দাম বৃদ্ধি কিংবা কমে যাওয়ার ইশারা-ইঙ্গিত করে।

এর মাধ্যমে স্টক সহজেই বিক্রয় এবং ক্রয় করা যেতে পারে।

তাহলে আশা করা যায় শেয়ার মার্কেট সম্পর্কে আপনি যথাযথ ধারণা পেয়েছেন যা আপনি আগে জানতেন না।

শেয়ার মার্কেটে নিয়ম কানুনঃ

যেকোনো কিছু ব্যবহারের কিছু নির্দিষ্ট নিয়মকানুন রয়েছে তেমনি শেয়ার মার্কেটের নিয়ম-কানুন রয়েছে। 

এগুলো অবশ্যই আপনাকে মানতে হবে অন্যথায় আপনি শেয়ার মার্কেটে প্রবেশ করতে পারবেন না।


▪ আপনাকে অবশ্যই বিশ্লেষণ করতে শিখতে হবে
▪ কোম্পানির হিসাব যাচাই করতে হবে
▪ শেয়ার কেনার ক্ষেত্রে কোম্পানির মূলভিত্তি দেখে কিনা
▪ EPS দেখুন। যে কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় বেশি এবং নেট অ্যাসেট ভ্যালু বেশি।
▪ মোট শেয়ারের সংখ্যা দেখুন আর দেখুন এটি কতজন পাবলিকের হাতে
▪ যেকোনো ধরনের গুজব এড়িয়ে চলতে হবে গুজবে কান দিলে চলবে না

তাহলে আশা করা যায় উপরে উল্লেখিত বিষয়গুলো থেকে আপনি সহজেই জেনে নিয়েছেন শেয়ার মার্কেট কি? এবং  শেয়ার বাজারের এর নিয়ম কানুন গুলো সম্পর্কে যতেষ্ট সচেষ্ট হয়েছেন।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

19 + 8 =

Scroll to Top
Share via
Copy link
Powered by Social Snap