তিনটি যুগান্তকারী উপায় ইউটিউব থেকে আয় করুন আপনিও|

ইউটিউব সম্পর্কে ধারণা রাখেন না এরকম মানুষ আপনি বর্তমান পৃথিবীতে অষ্টম আশ্চর্য হিসেবে চিহ্নিত করলে কোনমতেই ভুল করবেন না।

কারণ বর্তমানে প্রায় প্রত্যেকের হাতে স্মার্টফোন, আর যারা এই স্মার্টফোন ব্যবহারকারী তারা হয়তো যতটা না ওই স্মার্টফোনের ফাংশন সম্পর্কে জানেন তারচেয়ে বেশি ধারণা রাখেন ইউটিউব সম্পর্কে।

বর্তমান দুনিয়ার এমন কোন সমস্যা নেই যার সমাধান আপনি ইউটিউব এর মাধ্যমে আপনি পাবেন না। আপনি ইউটিউবে সার্চ বার কে ব্যবহার করতে পারেন আপনার সমস্যা সমাধানের হাতিয়ার হিসেবে।

কিন্তু আপনি কি এটা কখনো ভেবে দেখেছেন যে আপনার সমস্যা সমাধানে যারা নিয়োজিত আছে প্রতিনিয়ত ও তারা এর বিনিময়ে কি পায়?

আপনি হয়তো এ সম্পর্কে অবগত আছেন যে যে কেউ নিজের স্বার্থ ছাড়া এক চুলও নড়ে না, তাহলে তারা কেন আপনাকে বিনা মূল্যে এই সেবা গুলো দিয়ে দিবে।

এটা বললে হয়তো ভুল হবে না যে অনেক ইউটিউবার আছেন যারা কোনরকমে স্বার্থের বলিদান ছাড়াই আপনাকে বিনামূল্যে সেবা দিয়ে থাকেন।

তবে ইউটিউবে যারা আপনাকে বিনামূল্যে সেবা দিচ্ছে বলে মনে হয় তার মধ্যে প্রায় 99% ইউটিউবার আপনার অজান্তে আপনাকে ব্যবহার করছে তাদের আয় করার একমাত্র হাতিয়ার হিসেবে।

এখন হয়তো আপনার মধ্যে হাজারখানেক প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে, তারা কিভাবে আমাকে ব্যবহার করছে তাদের আয় করার একমাত্র হাতিয়ার হিসেবে?

আজকের এই পোষ্ট এর মাধ্যমে আমি আলোচনা করব কিভাবে ইউটিউব থেকে টাকা আয় করা হয়? আর কিভাবে আপনি এতে অংশগ্রহণ করেন? এছাড়াও আপনি কিভাবে ইউটিউব এর মাধ্যমে টাকা আয় করবেন এই সম্পর্কে পুরোপুরি আলোচনা করা হয়েছে।

এড এর মাধ্যমে আয়-

আপনি হয়তো যেকোনো ভিডিও ওপেন করার পূর্ব মুহূর্তে কিংবা এর মধ্যে খানে ভিডিও অপ্রাসঙ্গিক কিছু চিত্র দেখতে পারেন।

আর এই কয়েক সেকেন্ডের ধারণকৃত ভিডিও থেকে আমরা সাধারণত অ্যাডভার্টাইজমেন্ট হিসেবে জানি। কিন্তু কেন আসে এই অ্যাডভার্টাইজমেন্ট গুলো?

আপনি যখনই কোন ভিডিও ওপেন করার পর এই অ্যাডগুলোতে ক্লিক করেন তখন ওই চ্যানেলের মালিক কে আপনি এর বিনিময় কিছু মূল্য দান করেন।

আর এভাবে আপনি যখন নতুন কোন ইউটিউব চ্যানেল খুলবেন এবং এতে কিছু ইউনিক কনটেন্ট আপলোড দেয়ার পরে গুগল এডসেন্স এর জন্য আবেদন করবেন তখন আপনি এর এপ্রোভাল পেয়ে যাবেন।

আর যখন আপনি গুগোল অ্যাডসেন্সে অ্যাপ্রভাল পেয়ে যাবেন এরপর গুগল আপনার ইউটিউব চ্যানেলের কনটেন্ট শো করবে, আর কোন ভিজিটর এতে ক্লিক করলে আপনি আয় করতে পারবেন।

ঠিক একই রকম ভাবে আপনিও যদি অন্য কোন ইউটিউব চ্যানেলের অ্যাডভার্টাইজমেন্ট এ ক্লিক করেন তাহলে ওই ব্যক্তি আয় করতে পারবে।

যার পরিমাণ বহুলাংশে বৃদ্ধি পাবে যখনই আপনার চ্যানেলের পেইজ ভিউ অনেক বেশি পরিমাণ বৃদ্ধি পাবে।

বিজনেস প্রোডাক্ট-

আপনি যখনই আপনার ইউটিউব চ্যানেল থেকে খুব বেশি বড় করতে পারবেন, তখন এফিলিয়েট মার্কেটিং এর মাধ্যমে আয় করতে পারবেন।

আরেফিনের মার্কেটিং এর অন্যতম একটি শাখা হলো অন্যের প্রোডাক্ট কে প্রমোট করার মাধ্যমে আয় করা। মজার ব্যাপার হল এটা আপনার ইউটিউব চ্যানেলের কোন প্রকার ক্ষতি হবে না।

কারণ আপনি যখনই আপনার ইউটিউব চ্যানেলের একটি গুরুত্বপূর্ণ ভিডিও ওপেন করতে চাইবেন তখনি এর শুরুতে কয়েক সেকেন্ডের মধ্যে আপনার প্রোডাক্ট কে প্রমোট করতে পারবেন।

আর প্রোডাক্ট প্রমোট করা হয়ে গেলে এ সম্পর্কে বিস্তারিত জানার  উদ্দেশ্যে আপনি আপনার ভিডিও ডেসক্রিপশন লিংক দিয়ে দিবেন। যাতে করে যে কেউ এ সম্পর্কে জানতে পারবে।

আর যখনই খুব বেশি সংখ্যক ব্যক্তি এতে আগ্রহ প্রকাশ করবে তখন ওই প্রোডাক্ট কিনতে চাইবে যার ফলশ্রুতিতে আপনি কোন রকম কষ্ট ছাড়াই আয় করতে পারবেন।

সোসিয়াল মিডিয়া-

আপনি চাইলে ইউটিউব চ্যানেলের মাধ্যমে আপনার সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম গুলোকে খুব সহজেই প্রমোট করতে পারবেন।

আর অনেকে আছেন সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে তাদের বিজনেস প্রোডাক্ট গুলোকে সেল করেন এবং অন্যান্য বিষয়াদি তুলে ধরেন।

আর যখনই আপনি আপনার জনপ্রিয় ইউটিউব চ্যানেলের মাধ্যমে আপনার সোসিয়াল গণমাধ্যমগুলোকে প্রমোট করবেন তখনই এতে বহু সংখ্যক ভিজিটর এর উপস্থিতি লক্ষ্য করতে পারবেন।

আর যেহেতু যেকোনো বিজনেসের মূল কেন্দ্রবিন্দু হল ভিজিটর বা কাস্টমার, তাই এটা বৃদ্ধি পেলে আপনার বিজনেস অবশ্যই সফলতার চরম পর্যায়ে পৌঁছে যাবে।

আর উপরে উল্লেখিত তিনটি উপায়ে আপনি চাইলে একটি ইউটিউব চ্যানেল খুলে আয় করতে পারবেন।

তবে বিষয়টা মোটেও সেরকম নয় যে আপনি চাইলে উপরের দেয়া মাত্র তিনটি উপায়ে আয় করতে পারবেন, ইউটিউব চ্যানেল খুলে দেখুন আয় করার মত অনেক অপশনে আপনার চোখের সামনে ভেসে উঠবে।

তবে ইউটিউব চ্যানেলে প্রতি আকৃষ্ট হওয়ার জন্য উপরে দেয়া তিনটি আয় করার ফরমেট যথেষ্ট বলে আমি মনে করি।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

2 × one =

Scroll to Top
Share via
Copy link
Powered by Social Snap