ফেসবুক সিকিউরিটি টিপস সম্পর্কে অবশ্যই জানতে হবে|

ফেসবুকে আপনি যতক্ষণ পর্যন্ত আপনার সিকিউরিটি সম্পর্কে সর্বোচ্চ পর্যায়ে না পৌঁছাবেন ততক্ষণ পর্যন্ত আপনি এখানে মোটেও নিরাপদ নয়।

বিষয়টা এরকম যে আপনি যখনই আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্টে সিকিউরিটি সম্পর্কে খুনসুটি করবেন, তখনই আপনি হ্যাকিংয়ের সম্মুখীন হতে পারেন।

কারণ হ্যাকার কিংবা স্প্যামাররা আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্টের ছোট ছোট সিকিউরিটি দুর্বলতা গুলো খুজে, তারপর আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট এর উপর আঘাত আনতে পারে।

কারণে হ্যাকিংয়ের সম্মুখীন হওয়ার আগে আপনাকে আপনার ফেসবুক আইডির সিকিউরিটি নিয়ে ভীষণ ভাবতে হয়, কেমন করা দরকার আপনার ফেসবুক আইডির সিকিউরিটি কে?

আর কিভাবে আপনার ফেসবুক আইডি সিকিউরিটিকে সর্বোচ্চ পর্যায়ে নিয়ে যাবেন, যাতে করে কোন হ্যাকারের পক্ষে সাধ্য হবে না আপনার ফেসবুক আইডি হ্যাকিং করার।

আজকের এই পোস্টটিতে আমি আলোচনা পুরোপুরিভাবে সিকিউরিটি দিবেন, যাতে করে কেউ আপনার ফেসবুক আইডির দিকে চোখ তুলে  না তাকাতে পারে।

পাসওয়ার্ড

আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট এর সিকিউরিটির সর্বোচ্চ পর্যায় হলো আপনার পাসওয়ার্ড, এটা আপনি যতটা স্ট্রং ভাবে দিবেন আপনার ফেসবুক একাউন্টে সিকিউরিটি ঠিক ততটাই শক্ত হবে।

অনেকে আসলে ফেসবুকের একটি পাসওয়ার্ড চয়েজ করার ক্ষেত্রে অনেক ভুল-ভ্রান্তি করে থাকে, যা তাদের ফেসবুক আইডির সিকিউরিটিকে দুর্বল করে দেয়।

যখনই আপনি একটু দুর্বল পাসওয়ার্ড ব্যবহার করবেন তখন  হ্যাকার কিংবা ছোটখাটো স্প্যামার Bruce Force attack দিয়ে আপনার ফেসবুক আইডি তার নিজের দখলে নিবে।

আর কিভাবে আপনি একটি সর্বোচ্চ নিরাপত্তা মূলক পাসওয়ার্ড ব্যবহার করতে পারবেন? এটা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে হলে নিচের পোস্টটি দেখে আসুন।

ট্রাস্টেড কন্টাক্টস  

এটি ফেসবুকে ল্যান্ডিং করা একটি চরম ফিচার, এই একটিমাত্র সেটিং আপনার ফেসবুক আইডি হ্যাক হওয়ার আগে  প্রটেক্ট করবে এবং হ্যাক হওয়ার পরেও আপনার কাছে আইডি ফিরিয়ে আনতে সাহায্য করবে।

শুধু তা নয় এই ট্রাস্টেড কন্ট্যাক্টস যদি আপনি ওপেন করে আপনার তিনজন থেকে 5 জন বন্ধুকে যুক্ত কি করে নেন তাহলে আপনি কখনও ফেসবুকে ডিজেবল সংক্রান্ত কোন সমস্যার সম্মুখীন হবেন না।

আর কিভাবে আপনার ফেসবুক আইডিতে ট্রাস্টেড কন্ট্যাক্টস যুক্ত করবেন? এবং এটি সম্পর্কে সম্পূর্ণ ধারণা পাওয়ার জন্য আপনি চাইলে, নিচের দেয়া পোস্টটি দেখে আসতে পারেন।

টু স্টেপ ভেরিফিকেশন

যখনই কোন দুষ্কৃতিকারী আপনার ফেসবুক আইডিতে আপনার অনুমতি ছাড়া লগইন করতে চাইবে তখনই সে চাইলে সহজেই লগইন করতে পারবে।

কিন্তু আপনি যদি আপনার ফেসবুক আইডিতে টু স্টেপ ভেরিফিকেশন অপশন টি অপেন করে নেন, তাহলে সে কখনো যদি আপনার অনুমতি ছাড়া লগইন করতে চায় তখন একটি রিকভারি কোড দিতে হবে।

কিংবা আপনি আপনার ব্রাউজার অথবা ফেসবুকে অফিশিয়াল অ্যাপস থেকে যদি তার লগইন অ্যাপ্রুভ করেন তাহলে সে লগইন করতে সক্ষম হবে।

এখানে মজার ব্যাপার হলো এই যে যখনই আপনি এরকম অস্বাভাবিক কোনো কিছু আপনার ফেসবুকের নোটিফিকেশন বারে দেখতে পাবেন, তখনই আপনি এ বিরুদ্ধে অ্যাকশন নিতে পারবেন।

আর কিভবে আপনার ফেসবুক আইডিতে টু-স্টেপ ভেরিফিকেশন’ অপশন ওপেন করবেন এজন্য আপনাকে একটি প্রসেস করতে হবে।

প্রথমে আপনার ফেসবুক আইডিতে লগিন করুন তারপর Security And Login -Use two factor authentication -Enter Password – এরপর আপনার ফোন নাম্বার দিয়ে  টু স্টেপ ভেরিফিকেশন চালু করুন।

লগ ইন এলার্ট

প্রথমেই জেনে নিন এই লগইন অ্যালার্ট এর কাজ কি?

যখনই কেউ আপনার ফেসবুক আইডির কোন স্থান থেকে লগইন করবেন যেখান থেকে আগে কখনো লগইন করা হয়নি কিংবা হয়েছে, তখনই ফেসবুক কর্তৃপক্ষ এটা আপনাকে এসএমএস আকারে জানিয়ে দেবে।

এতে করে আপনি খুব সহজেই সতর্ক হয়ে যেতে পারবেন, এবং এ ক্ষেত্রে কার্যকরী পদক্ষেপ অনুযায়ী আপনি আপনার ফেসবুক একাউন্টে পাসওয়ার্ড পরিবর্তন করতে পারবেন।

এই সেটিং টি ওপেন করতে হলে আপনাকে আগের মত Security And Login -Get alert about unrecognized login – এরপর আপনি যেভাবে নোটিফিকেশনগুলো পেতে চান সেগুলো সেটআপ করুন।

এখানে আপনি চাইলে একটি ইমেইল এড্রেস যুক্ত করতে পারেন যার মাধ্যমে আপনি নোটিফিকেশন পাবেন, তাছাড়া আপনি চাইলে ফোন নাম্বার কিংবা মেসেঞ্জার যুক্ত করতে পারেন।

ফেসবুক সিকিউরিটি টিপস যেগুলো সম্পর্কে আপনাকে অবশ্যই জানতে হবে|


যখনই আপনি এ অপশনটি চালু করে দিবেন, তখনই কোন লোকেশন থেকে আপনার ফেসবুক আইডি লগইন করা হলে তা ফেসবুক কর্তৃপক্ষ নোটিফিকেশন আকারে জানিয়ে দিবে।

ফোন নাম্বার 

অনেকেই আছেন ফেসবুক আইডিতে শুধুমাত্র ইমেইল যুক্ত করে রাখেন, ওই সমস্ত ব্যক্তিরা ফেসবুকে ফোন নাম্বার যুক্ত করাতে খুব বেশি একটা প্রাধান্য দেন না।

তবে আপনি কি জানেন আপনার ফেসবুক আইডি  ফেসলক  ডিজেবল সংক্রান্ত সমস্যা হওয়ার সিংহভাগ নির্ভর করে আপনার ফোন নাম্বার না দেয়ার উপর?

আপনি যদি আপনার ফেসবুক আইডিতে ফোন নাম্বার না যুক্ত করেন তাহলে শুধু ফেস লক ডিজেবল সংক্রান্ত সমস্যাই নয়, আরো অনেক টেম্পোরারি লক সংক্রান্ত সমস্যা হতে পারে।

আর তাই অবশ্যই আপনার ফেসবুক আইডি সর্বোচ্চ নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য একটি ফোন নাম্বার যুক্ত করতে হবে।

আর উপরের দেয়া বিষয়গুলো যখনই সেটাপ ফেসবুক আইডিতে আপনি পুরোপুরি এপ্লাই করতে পারবেন তখনই আপনার ফেসবুক একাউন্টে আর কখনো সিকিউরিটি জনিত কোন সমস্যা হবে না।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

eleven − 3 =

Scroll to Top
Share via
Copy link
Powered by Social Snap