৫ টি উপায়ে ফেসবুক পেজ থেকে আয় করুন|

একটি ফেসবুক পেজের মাধ্যমে আপনি যেমন বেশ ভালো বিনোদন নিতে পারবেন, ঠিক তেমনি ভাবে এই ফেসবুক পেজকে গড়ে তুলতে পারেন আপনার অনলাইনে আয় করার একমাত্র কারখানা হিসেবে।

অনেকেই এটা মনে করেন যে ফেসবুক শুধুমাত্র বিনোদনের জায়গা। এখানে আপনি আপনার অবসর কিংবা অন্য যে কোন সময় কাটিয়ে বিনোদন ছাড়া আর কিছুই পাবেননা।

উপরের কথাটা আসলে কতটা যৌক্তিক? সমস্ত জিনিসেরই অপকারী দিক যেমন আছে তেমনি উপকারী দিকও আছে। উপকার কিংবা অপকার এর হিসাব সমীকরণে ফেসবুক অনেক ধাপ এগিয়ে।

আর ফেসবুকের মাধ্যমে আয় করার উপায় যতগুলো আছে তার মধ্যে একটি উপায় হল ফেসবুকের পেইজ থেকে টাকা আয় করা।

তাহলে আপনি কি পুরোপুরি তৈরি ফেসবুক পেইজ থেকে টাকা আয় করার জন্য? অথবা আপনি কি এটা ভাবছেন যে এটা আপনার দ্বারা হবে না? 

আপনি যদি এটা ভেবে থাকেন যে ফেসবুক পেইজের মাধ্যমে আপনি আয় করতে পারবেন না তাহলে এটা নিতান্তই ভুল ধারণা।

তাহলে কিভাবে আপনি ফেসবুক পেজ থেকে টাকা আয় করবেন? আর কিভাবেই বা আপনার অবসর সময় ফেসবুকে কাটানো যেকোনো কাজকে আপনার জীবনের মূল্যবান উপহার হিসেবে দিবেন?

এই সমস্ত কিছু জানতে হলে আজকে আপনাকে এই পোস্টটি একদম শেষ পর্যন্ত দেখতে হবে। তাহলেই আপনি এটা জানতে পারবেন কিভাবে ফেসবুক পেজ থেকে টাকা আয় করবেন?

আপনি চাইলে নানা ধরনের সিক্রেট টিপস ফলো করে ফেসবুক পেজ থেকে টাকা আয় করতে পারেন।

 লিঙ্ক শেয়ার করে

আপনি হয়তো ইন্টারনেটের জগতে এরকম অনেক প্ল্যাটফর্মের শরণাপন্ন হয়েছে যেগুলোতে আপনি লিঙ্ক শেয়ার করার মাধ্যমে আয় করতে পারেন।

যখনই কেউ আপনার প্রদত্ত লিংকে ক্লিক করবেন তখন এই ডলারগুলো আপনার পূর্বের করা একাউন্টে জমা হবে।

উদাহরণস্বরূপ আপনি যদি ad fly নামক ওয়েবসাইটটিতে প্রথমে একটি একাউন্ট খুলে তারপর লিংক শর্ট করেন এবং এগুলো ছড়িয়ে দিন সবার মাঝে, তাহলে আপনি আয় করতে পারবেন ।

শুধুমাত্র Ad fly নামক ওয়েবসাইটটি নয়, এরকম আরো অনেক ওয়েবসাইট আছে যে সাইটগুলোর মাধ্যমে আপনার গুরুত্বপূর্ণ লিংক থেকে শর্ট করার মাধ্যমে অন্যদের কাছে ছড়িয়ে দিতে পারেন।

আপনি হয়তো এটা প্রশ্ন করতে পারেন, আপনার যদি আপনার প্রধান লিঙ্ক ছোট করে দেন  তাহলে এর কাজ করা কি বন্ধ হয়ে যাবে?
তাহলে আমি বলব এটা কখনোই হবে না।

আপনি যখনই আপনার কোন ফাইল এর লিংকটি কে ছোট করে নিবেন তখন এর সাইজ শুধু ছোটো হবে কিন্তু লিংকটি পূর্বের ন্যায় কাজ করবে।

আর আপনি যদি এমনিতে একটি লিংক দিয়ে দিন তাহলে এই লিংকটিতে কেউ ক্লিক করবে না।

এর আগে আপনি যে সম্পর্কিত লিংক দিয়েছেন সে সম্পর্কে বিশদ বর্ণনা করুন। তারপর লিংক দিলে ১০০০ ভাগ নিশ্চয়তা সহকারে আপনি আপনার লিংকে অনেকগুলো ক্লিক দেখতে পারবেন।

আর এই লিংক শর্ট করার মাধ্যমে কতটুকু আয় করা যায় তা আপনি কল্পনাও করতে পারবেন না।

আপনি যদি Ad fly নামক লিংক শর্ট করার ওয়েবসাইট থেকে আপনার লিঙ্ক 
 ছোট করেন, তাহলে আপনি তাদের প্রদত্ত লিংকটি তে ১০০০ ক্লিকের জন্য ১৫ ডলার পাবেন।

৫ টি কার্যকরী উপায়ে ফেসবুক পেজ থেকে আয় করুন আপনিও |

তবে এর জন্য অবশ্যই আপনাকে অন্যান্য আট-দশটি ওয়েবসাইটের মতোই রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। আর সবগুলো কাজ আপনি একদম ফ্রিতে করতে পারবেন।

সেরকম লিংক শর্ট করার কয়েকটি ওয়েবসাইটের লিঙ্ক আপনি চাইলে নিচে থেকে দেখে আসতে পারেন।

Linkvertis
shrink-service.it
Shrinkearn

 অন্যের পন্য প্রমোট করে

এরকম কয়েক লক্ষ ওয়েবসাইট আছে যাদের প্রোডাক্ট আপনি যদি প্রচার করেন  এবং আপনার প্রচারণার মাধ্যমে কেউ যদি তাদের প্রোডাক্ট কিনে তাহলে তারা আপনাকে খুব ভালো মুনাফা দিয়ে থাকে।

আর আপনি যদি আপনার ফেসবুক পেজে তাদের দেয়া প্রোডাক্ট খুব ভালোভাবে বর্ণনা করে আপনার ভিজিটর এর সামনে তুলে ধরেন।

তাহলে অনেক সম্ভাবনা থাকে আপনার প্রদানকৃত প্রোডাক্ট ভিজিটররা কিনে নিবে। আর এগুলোকে বলা হয় এফিলিয়েট মার্কেটিং।

আর আপনার ফেসবুক পেইজের ফ্যান এবং ফলোয়ার যদি যথেষ্ট পরিমাণ থাকে তাহলে এটি আরো সহজতর।

কারণ আপনি যত বেশি সংখ্যক ফ্যান ফলোয়ার্স এর সামনে আপনার প্রোডাক্ট টি ফুটিয়ে তুলবেন, আপনার প্রোডাক্ট টি কিনার পার্সেন্টেজ ঠিক ততটাই বৃদ্ধি পাবে।

 বিজ্ঞাপন 

এরকম অনেক ছোট ছোট কোম্পানি আছে যারা ভিডিও দ্বারা স্পনসর্ড করার মতোই কোন কিছু লিখে স্পনসর্ড করে। আর এক্ষেত্রে তারা সবচেয়ে বেশি প্রাধান্য দেয় ফেসবুক নামক জনপ্রিয় সোসিয়াল গণমাধ্যমকে।

এখন একটি কথা হল যখন আপনার ফেসবুক পেজটির ফ্যান ফলোয়ার্স খুব বেশি হবে তখনি ঐ সমস্ত কোম্পানিগুলো নজর আপনার দিকে থাকবে।

এটা হয়তো আপনাকে তাদের সাইটের বর্ণনা দিয়ে স্পনসর্ড করার মত অফার করতে পারে। তাহলে আপনার কি হবে? লাভ ছাড়া আর কি।

দেখেন, আপনি যদি অন্য কোন কোম্পানি স্পন্সর আপনার ফেসবুক পেইজের মাধ্যমে করেন তাহলে কিন্তু আপনার কোন ক্ষতি হচ্ছে না।

আর যখনই এগুলো আপনার ফেসবুক পেইজের ফ্যান ফলোয়ার্স এর মন জয় করতে পারবে তখনই সে এটাকে শেয়ার করবে। তাহলে আপনার প্রফিট এর পরিমাণ আরো বেশি বেড়ে যাবে।

আর এই স্পনসর্ড করার সময় আপনাকে অবশ্যই ওই কোম্পানির দেয়া বিষয়টিকে খুব ভালোভাবে বুঝিয়ে আপনার পেইজের ফ্যান ফলোয়ার্স দের সামনে ফুটিয়ে তুলতে হবে।

 আপনার ওয়েবসাইটের লিঙ্ক 



আপনি চাইলে আপনার ওয়েবসাইটের বিভিন্ন ধরনের ইন্টারেস্টিং পোস্ট আপনার ফেসবুক পেইজে শেয়ার করতে পারেন।

আর যেকোনো ধরনের ওয়েবসাইট থেকে আয় করার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম গুলোর মধ্যে একটি হচ্ছে গুগল এডসেন্স এর এড দেখিয়ে আয় করা।

আর আপনি গুগল এডসেন্স থেকে তখনই খুব বেশি আয় করতে পারবেন যখন আপনার সাইটের খুব বেশি সংখ্যক ভিজিটরের আনা গোনা হবে।

যখনই আপনার ফেসবুক পেইজে আপনার ব্লগ সাইটের পোস্ট শেয়ার করবেন তখন এটা কোন ভিজিটর ভালো লাগলে তাতে অবশ্যই ক্লিক করে আপনার সাইটে প্রবেশ করবে।

এতে করে অবশ্যই আপনার ওয়েবসাইটের ভিজিটরের সংখ্যা বৃদ্ধি পাবে এবং  গুগল এডসেন্স থেকে আয় করার পরিমানও বৃদ্ধি পাবে।

 পেজ বিক্রি করে 

যখনই আপনার ফেসবুক পেইজ অনেক বড় হয়ে যাবে তখন আপনি চাইলে এই পেইজটিকে বিক্রি করার মাধ্যমে অনেক টাকা আয় করতে পারেন।

সেজন্য আপনি যখনই আপনার পেইজে টাইমলাইনে বিক্রি করার মত একটি পোস্ট করবেন তখন দেখবেন অনেক কিছুই তো এটা কেনার আগ্রহ দেখাচ্ছে।

তবে এটা তখনই সার্থক হবে যখন আপনি আপনার ফেসবুক পেইজটি অনেক বেশি বড় করতে পারবেন। যখনই আপনার যেকোনো স্ট্যাটাসের reached অনেক বেশি হবে।

আর উপরুক্ত উপায়ে আপনি খুব সহজেই আপনার ফেসবুক পেজ থেকে আয় করতে পারবেন।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

one × two =

Scroll to Top
Share via
Copy link
Powered by Social Snap