ফেসবুক এবং ইমেইল হ্যাকিং এর নামে প্রতারণা|

ফেসবুক এবং ইমেইল হ্যাকিং এর নামে যেভাবে আমরা প্রতিনিয়ত প্রতারণার শিকার হচ্ছি!(এক চিমটি বাস্তবতা)



হ্যাকিংয়ের কথা শুনলেই আমাদের শরীরের মধ্যে তোলপাড় শুরু হয়ে যায়! 


প্রায় সবারই মনোবাসনা হলো- আমি হ্যাকার হব যাতে করে আমি যেকোনো সময় যেকোনো কিছু করতে পারবো।


আসলে আপনি চাইলেই কি হ্যাকার হতে পারবেন?


হ্যা অবশ্যই। তবে এটা পুরোপুরি নির্ভর করে আপনার ইচ্ছা শক্তি আর প্রবল মনোভাব এর উপর।


তবে হ্যাকিং এর জগতের আপনার কাছে পুরোটা মনে হতে পারে ফেসবুক হ্যাকিং! যেহেতু এটা জনপ্রিয় সোসিয়াল গণমাধ্যম তাই আমাদের এটার প্রতি কড়া নজর।


তাছাড়া বিএফ জিএফ কখন কি করছে এটা জানতে তো আমাদের ইচ্ছার কোন কমতি নেই।🤣


এ কারণে আমরা অনেক সময় অনেক ভুল পদক্ষেপ নিয়ে নেই যখন আমাদের মনে ফেসবুক আইডিটি কিংবা ইমেইল এক্সেস নেওয়ার ইচ্ছা জাগে।


অর্থাৎ অনেক ভুয়া সাইট কিংবা অ্যাপস আছে যেগুলো আপনি ব্যবহার করার সিদ্বান্ত নেন।এতে করে আমাদের  অনেক সময় চরম ভোগান্তির মধ্যে পরতে হয়।


অর্থাৎ আপনাকে বলে যে এরকম  করো তাহলে ফেসবুক আইডিটি তুমি খুব সহজেই হ্যাক করতে পারবে?


একটা বিষয় জেনে রাখা ভালো যে- কেউ কাউকে কখনো-ই ফ্রিতে হ্যাকিং শেখাবে না! কথাটা একটু তিতা হলেও এটাই সত্যি!


যেখানে অনেকেই টাকা খরচ করেও পুরোপুরি হ্যাকিং শিখতে পারেন না- কিংবা হ্যাক করতে পারেন না, সেখানে ফ্রিতে কিভাবে তারা আপনাকে হ্যাকিং শিখাতে যাবে।



এই পোষ্টের আলোচ্য বিষয় হল- কয়েকটি ভুল পদ্বতির সম্পর্কে  যে পদ্ধতিতে আপনি কখোনোই ইমেইল এবং ফেসবুক হ্যাকিং করার চেষ্টা করবেন নাহ।


কারণ নিম্নোক্ত পদ্ধতিতে আপনি যদি ইমেইল কিংবা ফেসবুক হ্যাকিং করতে চান তাহলে আপনি প্রতারণার শিকার হবেন এবং বিপদ আপনারই হবে!

ফ্রী হ্যাকিং সফটওয়ার প্রতারনা: এটাই বর্তমানে সবচেয়ে বেশি আলোচ্য বিষয়।


আপনি যে কোন এপ স্টোরে- ওয়েবে যদি সার্চ করেন হ্যাকিং সফটওয়্যার তাহলে আপনি এরকম হাজার খানেক সফটওয়্যার পেয়ে যাবেন।


এখানে একটি বিষয় নিজে এক্সপেরিয়েন্স থেকে বলি যে হ্যাকাররা কখনোই কোন অ্যাপ ব্যবহার করেন না।


তারা যেকোন কিছু হ্যাকিং করার জন্য নিজে থেকেই কোন টুলস তৈরি করে কিংবা অন্যের দেয়া টুলস গুলো ব্যবহার করি তাদের কার্যসিদ্ধি করে।


আসলে এই সমস্ত অ্যাপস গুলা সবকটা যে ভুয়া সেরকম নয়। এক হাজারের মধ্যে আপনি দু একটা অ্যাপস পেতে পারেন যেগুলো আপনার কাজে লাগতে পারে!


উদাহরণস্বরূপ দুইটা অ্যাপস বিষয়ে আলোচনা করা যাক নিচে দুইটা অ্যাপস দেওয়া হলো। 


যেগুলো দেখলেই মনে হয় আসলে এগুলো দিয়ে ফেসবুকের পাসওয়ার্ড হ্যাক করা সম্ভব।


অ্যাপস দুইটি হল বহুল আলোচিত dpwallinone password finder” এবং ‘PassWord Hunter V2.1’ 


আসলে এটা ভুয়া এবং এই অ্যাপস গুলোর সাহায্যে কোন রকমেই হ্যাক কিংবা ইমেইল এর রিকভার করা সম্ভব নয়।


আর আপনার যদি এরকম কোন অ্যাপস এর সঙ্গে কোন পরিচিতি থাকে তাহলে কাইন্ডলি আমাকে জানাবেন! (আমি অনেক আগ্রহী)☺


ওয়েবসাইট: আপনি গুগল কিংবা যে কোন সার্চ ইঞ্জিনে  কিংবা ইউটিউবে ভিডিও দেখলে দেখতে পারেন!তারা আপনাকে এরকম অনেক ওয়েবসাইটের সন্ধান দিবে।


যার সাহায্যে আপনি নাকি ফেসবুক অ্যাকাউন্ট এবং যে কারো ইমেইল হ্যাক করতে পারবেন?


এরকম অনেক ওয়েব সাইট আছে যেগুলো আপনাকে টাকার বিনিময়ে  ফেসবুক আইডি থেকে কিংবা ইমেইল কে হ্যাক দিতে পারে!


তবে এগুলোতে অনেকেই ভুল পদক্ষেপ নেন এবং অনেক ভুয়া ওয়েবসাইটের প্রতারণার শিকার হন।


আসলে আপনি এরকম হাতেগোনা কয়েকটি ওয়েবসাইট পাবেন যেগুলো আসলেই কাজ করে।


আর বাকিগুলা খুদে হ্যাকারদেরকে প্রতারণার  ফাঁদে আটকে দেয়।




এরকম ওয়েবসাইট এ সাইন আপ করার সময় তারা আপনার যে কোন ডকুমেন্টকে চুরি করে নিতে পারে!


অর্থাৎ আপনার দেওয়া ইমেইল কিংবা অন্য কিছু যেগুলোর সাহায্যে আপনাকে খুব সহজে তারা ক্রাক করতে পারবে!


তাই যে কোন ওয়েবসাইট আপনি হ্যাকিং এর কাজে ব্যবহার করেন না কেন, সর্বপ্রথম আপনার উচিত হবে ওয়েবসাইটগুলোকে যাচাই করে নেওয়া!


অথবা আপনি অন্যান্য মানুষের ফিডব্যাক দেখে নিবেন যাতে করে আপনি অন্য কারো মত প্রতারণার শিকার না হন।


প্রতারক এর শিকার: আপনি যদি হ্যাকিং এর জগতে একবার চলে যান বা যাওয়ার চেষ্টা করেন তাহলে আপনি এখানে এরকম হাজার হাজার প্রতারক পাবেন।


তাদের মূল উদ্দেশ্যই হলো আপনার সাথে  ক্ষণিকের সম্পর্ক স্থাপনের মাধ্যমে  আপনার বিশ্বাস অর্জন এবং তার পরে আপনাকে সর্বসান্ত করা।


অর্থাৎ তারা বলতে পারে আপনি তাদেরকে টাকা দেন, এবং তারা এর বিনিময়ে আপনাকে আপনার কাজটি করে দেবে!


ভুলেও এরকম অচেনা মানুষের ফাঁদে পা দেবেন না, কারণ তারা আপনার টাকা নিয়ে উধাও হয়ে যাবে!


তাই এরকম জিনিস করার আগে যে কোন ট্রাস্টেড ব্যক্তি কে ফলো করুন যাকে  আপনি আগে থেকে চিনেন।


এবং সেখানে একজন থার্ড পারসন রাখুন যাতে করে বিপরীত কিছু হলে আপনি তাকেই ধরতে পারেন।


তাছাড়া আরো অনেক উপায়ে আপনি ফ্রি ইমেইল হ্যাকিং প্রতারণার ও শিকার হতে পারেন। আসলে এরকম হাজার হাজার কারণ আছে যে কারণগুলোর শিকার আমরা প্রতিনিয়ত হচ্ছি!


তবে উপরে উল্লেখিত কারণগুলি সবার সাথে হচ্ছে, এবং এগুলো বেশি এফেক্ট করে আমাদের ফেসবুক এবং ইমেইল হ্যাক করার সময় ভোগ করা প্রতারণার গুলোর মধ্যে।


আপনি এরকম কাজে যাওয়ার আগে কাইন্ডলি উপরের কথা গুলো একবার না হয় মনের মধ্যে আনবেন!


একটাই কথা বলব যে কাজ করেন না কেন অবশ্যই কিছু সময় নেন এবং সঠিক পদক্ষেপ নিন!

Leave a Comment

5 + 14 =